‘প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ আমার প্রত্যাশারও বাইরে ছিল’

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০২:৫২ পিএম, ০৯ জুলাই ২০২০

ফোনটা একবার বাজতেই ধরলেন বাংলাদেশের আরচারির পোস্টারবয় রোমান সানা। বৃহস্পতিবার দুপুরে কেবল তিনি মাকে নিয়ে খুলনার একটি হাসপাতালকে থেকে বেড়িয়েছেন। রোমান সানার মা ডায়াবেটিসসহ আরও কিছু সমস্যায় ভুগছেন। এর মধ্যে চোখেও আছে বড় সমস্যা। রোমান বৃহস্পতিবার চোখের ডাক্তার দেখিয়েছেন তার মাকে।

টোকিও অলিম্পিকে কোয়ালিফাই করা আরচার রোমান সানার এক পূর্ণাঙ্গ সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছে টোকিও অলিম্পিক-২০২০ এর অফিসিয়াল ওয়েসাইট। রোমান সানা তার মাকে নিয়ে বাসায় ফেরার পথে বললেন, ‘মাসখানেক আগে ওরা ভার্চৃয়াল ইন্টারভিউ নিয়েছিল। আজ প্রকাশ করেছে। লিংকটাও আমাকে পাঠিয়েছে। এক নজর দেখেছি। বাসায় গিয়ে আবার দেখব।’

গত বছর নেদারল্যান্ডসে ওয়ার্ল্ড আরচারি চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ জিতে প্রথম বাংলাদেশি আরচার ও দ্বিতীয় বাংলাদেশি ক্রীড়াবিদ হিসেবে সরাসরি অলিম্পিক গেমস খেলার যোগ্যতা অর্জন করেন রোমান সানা। এর আগে ২০১৬ রিও অলিম্পিকে সরাসরি কোয়লিফাই করে অংশ নিয়েছিলেন গলফার সিদ্দিকুর রহমান।

টোকিও অলিম্পিক-২০২০ এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে দেয়া সাক্ষাৎকারের একপর্যায়ে রোমান সানা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎকারের সুযোগ ও তার অভিনন্দন পাওয়াকে নিজের প্রত্যাশারও বাইরে বলে উল্লেখ করেছেন। বাংলাদেশের সেরা এ আরচার বলেন, ‘অলিম্পিক গেমসে খেলার যোগ্যতা অর্জন এবং এশিয়া কাপে স্বর্ণজয়ের পর আমি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলাম। তিনি আমাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। আমি জানি একটি দেশের প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করা কঠিন। প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ পেয়ে আমি অবাক হয়েছিলাম। সেটা ছিল আমার প্রত্যাশারও বাইরে।’

অলিম্পিক গেমসে কোয়ালিফাই করার পর এশিয়া কাপ ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং আরচারি টুর্নামেন্ট (স্টেজ-৩) রিকার্ভ পুরুষ ব্যক্তিগত ইভেন্টে স্বর্ণপদক জেতা রোমান সানাকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে ডেকে মিষ্টিমুখ করিয়েছিলেন। অলিম্পিক গেমসে খেলার যোগ্যতা অর্জন এবং এশিয়া কাপে স্বর্ণজয়ের জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা অভিনন্দন জানিয়েছিলেন বাংলাদেশের সেরা এই আরচারকে।

২০১৫ সালে ডেনমার্কে অনুষ্ঠিত ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপে যে আরচারের কাছে হেরেছিলেন রোমান ২০১৯ সালে ইতালির সেই মাওরো নেসপলিকে হারিয়ে গড়েছিলেন ইতিহাস। বিশ্বের চার নম্বর আরচারকে হারানো চাট্টিখানি কথা ছিল না।

sana

ঐ ম্যাচ সম্পর্কে রেমান সানা বলেন, ‘সেটা বড় এক ম্যাচ ছিল। দুর্দান্ত লড়াই ছিল। ওই জয়টা আমার আরচারি ক্যারিয়ারের বিশাল অর্জন। আমি আল্লাহর কাছে কৃতজ্ঞ এবং যারা সমর্থন দিয়েছেন তাদের কাছেও।’

ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ জয়ের পথে রোমান হারিয়েছিলেন দুইবারের ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ন ও অলিম্পিক পদকজয়ী দক্ষিণ কোরিয়ার কিম উজিনকে। ‘কিমকে হারানোর পরই আমার আত্মবিশ্বাস বেড়ে যায়। অলিম্পিকে কোয়ালিফাই করার স্বপ্নটাও তখন থেকে দেখতে শুরু করি’- বলেছেন রোমান সানা।

আরআই/এসএএস/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]