সেশনজটে ইবির ৮ বিভাগ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৬:০১ পিএম, ০১ মার্চ ২০২১
ফাইল ছবি

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) সেশনজটে আটকা পড়েছে আট বিভাগের শিক্ষার্থীরা। দুই বছর আগে অপরাপর বিভাগের শিক্ষার্থীদের মাস্টার্স শেষ হলেও শিক্ষাজীবন শেষ করতে পারেননি আট বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

নির্ধারিত সময়ের পরও শিক্ষাজীবন শেষ করতে না পারায় ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন এসব বিভাগের শিক্ষার্থীরা। তাদের অভিযোগ, বিভাগের শিক্ষকদের আন্তরিকতার অভাব, ক্লাস-পরীক্ষা সময়মতো না হওয়ার কারণে তাদেরকে জটে পড়তে হয়েছে। এরমধ্যে করোনা মহামারীর কারণে সেশনজটের সময় আরও দীর্ঘায়িত হয়েছে।

খোঁজ জানা যায়, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স প্রথম সেমিস্টার পরীক্ষা শেষ হয়েছে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি। এখনও দ্বিতীয় সেমিস্টারের পরীক্ষা বাকি তাদের। যেখানে স্বাভাবিকভাবে দুই বছর আগেই তাদের মাস্টার্স শেষ হওয়ার কথা ছিল। এই বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে অনার্সের ফল ইতোমধ্যে প্রকাশিত হলেও মাস্টার্সের ক্লাস শুরু হয়নি তাদের।

ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স প্রথম সেমিস্টার পরীক্ষা সম্পন্ন হলেও ফল প্রকাশিত হয়নি। দ্বিতীয় সেমিস্টারের ক্লাস শেষ হলেও পরীক্ষা শুরু হয়নি। বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে মাস্টার্সের ক্লাস চলমান রয়েছে।

ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন টেকনোলজি (আইসিটি) বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স দ্বিতীয় সেমিস্টারের ব্যবহারিক সম্পন্ন হলেও এখনও লিখিত বাকি রয়েছে। ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে মাস্টার্সের ক্লাস চলছে।

এদিকে গণিত বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স প্রথম সেমিস্টারের পরীক্ষা সম্পন্ন হয়ে দ্বিতীয় সেমিস্টারের পরীক্ষা চলছিল। কিন্তু সরকারের নির্দেশনায় তা স্থগিত হয়েছে। এ বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্সের ক্লাস অনলাইনে চলছে।

এছাড়া ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স প্রথম ও দ্বিতীয় সেমিস্টার পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু প্রথম সেমিস্টারের ৫১০৭ নম্বর কোর্সের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়নি। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি এ কোর্সের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। আবার ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স প্রথম সেমিস্টারের পরীক্ষা শুরু হলেও উভয় পরীক্ষা বন্ধ হয়ে যায়।

পরিসংখ্যান বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স পরীক্ষা সম্পন্ন হলেও ভাইভা বাকি রয়েছে। ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে মাস্টার্সের ক্লাস চলমান রয়েছে।

এদিকে ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং এবং আল ফিকহ্ অ্যান্ড লিগ্যাল স্টাডিজ বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স পরীক্ষা সম্পন্ন হলেও ফল প্রকাশিত হয়নি। ফিন্যান্স বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে মাস্টার্সের ক্লাস চলমান থাকলেও আল ফিকহ্ বিভাগে উক্ত বর্ষের অনার্সের ফল প্রকাশিত হলেও সরকারী নির্দেশনায় তা স্থগিত হয়েছে।

এসব বিভাগের শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, নির্দিষ্ট সময় শিক্ষাজীবন শেষ করতে না পারায় কর্মক্ষেত্রে আমরা পিছিয়ে পড়েছি। এ দুর্বিষহ সেশনজটের কবল থেকে আমরা বাঁচতে চাই।

কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সভাপতি সহযোগী অধ্যাপক আক্তারুজ্জামান বলেন, ‘শিক্ষক কম ও কেউ কেউ শিক্ষাছুটিতে থাকায় সময়মতো ল্যাবসহ ক্লাস-পরীক্ষা সম্পন্ন হয়নি। ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ও ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স দ্বিতীয় সেমিস্টার পরীক্ষা খুব দ্রুত শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু হঠাৎ পরীক্ষার স্থগিতাদেশ হওয়ায় আর সম্ভব হয়নি। এসব শিক্ষার্থীরা বের হলে সেশনজট অনেকাংশ কমে যেত।’

এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক শেখ আবদুস সালাম জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমি তালিকা করে অনার্স-মাস্টার্সের পরীক্ষা গ্রহণের অনুমতি দিয়েছিলাম। যাতে আটকে থাকা শিক্ষার্থীরা দ্রুত শিক্ষাজীবন শেষ করে বেরিয়ে যেতে পারে। কিন্তু সরকারের নির্দেশনার বাইরে তো যেতে পারিনা। মন্ত্রণালয় থেকে কোনো নির্দেশনা পেলে আমরা সে অনুযায়ী পরীক্ষা শুরু করব।’

রায়হান মাহবুব/আরএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]