মির্জাপুরে বিএনপির ৫৯ নেতাকর্মীর নামে মামলা

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)
প্রকাশিত: ০৯:৩১ পিএম, ১০ নভেম্বর ২০১৮

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম লিটন, উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ডি এ মতিন ও উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি ফরিদ মিয়াসহ বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের ৫৯ নেতাকর্মীর নামে মামলা করেছে পুলিশ।

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি, পুলিশের ওপর হামলা ও নাশকতার চেষ্টার অভিযোগে তাদের নামে মামলা করা হয়েছে বলে মির্জাপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) প্রকাশ চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, গত ৮ নভেম্বর বেলা সাড়ে ১২টার দিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ঘোষণা অনুযায়ী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল পেছানোর দাবিতে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের গোড়াই সোহাগপাড়া এলাকার কনা সুইটমিট দোকানের সামনে পাকা রাস্তায় নাশকতার প্রস্তুতি নেয় তারা। খবর পেয়ে মির্জাপুর থানা পুলিশের একটি দল ওই এলাকায় পৌঁছালে তারা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। এ সময় পুলিশ তাদের ধাওয়া করে উপজেলার বাঁশতৈল ইউনিয়নের উত্তর পেকুয়ার হায়দার আলী, আব্দুল গফুর ও গোড়াই ইউনিয়নের সোহাগপাড়া গ্রামের জিয়াউর রহমানকে গ্রেফতার করে। ঘটনাস্থল থেকে ১০টি ইটের টুকরা, দুটি বাঁশের লাঠি এবং চারটি লোহার রড উদ্ধার করে পুলিশ।

আটকদের জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সঙ্গে জড়িত মির্জাপুর উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম লিটন, উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ডি এ মতিন, উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি মো. ফরিদ মিয়া, ফতেপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহীদুর রহমান মৃধা, মহেড়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আলী হোসন খান খোকনসহ ৫৬ নেতাকর্মীর নাম জানতে পারে পুলিশ।

পরে মির্জাপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক প্রকাশ চন্দ্র সরকার বাদী হয়ে আটক তিনজনসহ ৫৯ জনের নামে নাশকতার চেষ্টা, মহসড়কে প্রতিবন্ধকতা এবং পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে ১৯৭৪ সালে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় অজ্ঞাত আরও ৫০/৬০ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

অভিযুক্তদের অধিকাংশই উপজেলা, ইউনিয়ন বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের সভাপতি-সম্পাদক পর্যায়ের নেতাকর্মী বলে উপজলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তারিকুল ইসলাম নয়া জানিয়েছেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, রাজনৈতিকভাবে ঘায়েল করতেই মিথ্যা মামলা দিয়ে নেতাকর্মীদের হয়রানি করা হচ্ছে।

মির্জাপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মিজানুল হক বলেন, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক বিবেচনায় নয়, মহাসড়কে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা, নাশকতার চেষ্টা ও পুলিশের ওপর হামলার কারণে মামলা হয়েছে।

এস এম এরশাদ/আরএআর/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :