দৌলতদিয়ায় নদী পারের অপেক্ষায় যানবাহনের দীর্ঘ সারি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি রাজবাড়ী
প্রকাশিত: ০১:২১ পিএম, ১৪ জুলাই ২০১৯

পদ্মায় তীব্র স্রোত ও ফেরি সংকটের কারণে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় নদী পারের অপেক্ষায় রয়েছে যাত্রীবোঝাই বাসসহ কয়েক শত যানবাহন। রোববার দুপুর ১২টার দিকে দৌলতদিয়া-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া প্রান্তে এই চিত্র দেখা গেছে।

এ সময় দেখা যায় দৌলতদিয়া প্রান্তে প্রায় ৭০টি বাস ও বিভিন্ন ধরনের পণ্যবাহী ৩ শতাধিক ট্রাক পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন ঢাকামুখী যানবাহনের চালক ও যাত্রীরা। এ অবস্থায় যাত্রীবাহী বাসকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হলেও পণ্যবাহী ট্রাকগুলো দীর্ঘ সময় ধরে সড়ক ও ট্রাক টার্মিনালে সিরিয়ালে আটকে রয়েছে।

ট্রাক চালকরা বলেন, তাদের অনেকেই শনিবার থেকে নদী পারের অপেক্ষায় দৌলতদিয়া প্রান্তে এসে সিরিয়ালে আটকা পড়েছেন। এতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। পাশাপাশি বাড়ছে খরচ। নদীতে কম ফেরি চলাচলের কারণে মূলত এ সমস্যা। কর্তৃপক্ষ বলে পর্যাপ্ত ফেরি আছে। কিন্তু এ সমস্যা দীর্ঘদিনের। মূলত ঘাট কর্তৃপক্ষের অবহেলায় দৌলতদিয়ায় তারা প্রতিনিয়তই ভোগান্তিতে পড়ছেন।

RAJBARI-DOULOTDYA-GHAT

দৌলতদিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ছোটবড় মিলিয়ে মোট ১৪টি ফেরি চলাচল করছে। নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে এই রুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়া অব্যাহত বৃষ্টির কারণে ঘাটের এপ্রোচ সড়ক পিচ্ছিল হওয়ায় ফেরিতে যানবাহন ওঠানামায়ও ব্যাঘাত ঘটছে। সব মিলিয়ে দৌলতদিয়া প্রান্তে নদী পারের অপেক্ষায় যানবাহনের সিরিয়াল তৈরি হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) আবু আব্দুল্লাহ জানান, পদ্মায় তীব্র স্রোত থাকায় পারাপারে ফেরিগুলোর স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বেশি সময় লাগছে। এ কারণে ঘাটে গড়ির কিছুটা বাড়তি চাপ রয়েছে।

এ রুটে মোট ১৫টি ফেরির মধ্যে বর্তমানে ১৪টি সচল রয়েছে। এগুলো দিয়ে যাত্রীবাহী বাস ও পচনশীল পণ্যবাহী ট্রাককে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পার করা হচ্ছে।

রুবেলুর রহমান/এমএমজেড/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]