বেনাপোল দিয়ে আসেনি ভারতীয় পেঁয়াজ

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি বেনাপোল (যশোর)
প্রকাশিত: ০৭:১০ পিএম, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

ভারত থেকে দেশের বিভিন্ন স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ বাংলাদেশে রফতানি হলেও দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে কোনো পেঁয়াজ আসেনি। ভারতের পেট্রাপোল বন্দর এলাকায় আটকে থাকা পেঁয়াজবোঝাই ট্রাকের লোড এক্সপোর্ট (লিইও) করা না থাকায় বেনাপোল বন্দরে কোনো পৌঁছেনি কোনো ট্রাক।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান বলেন, নিষেধাজ্ঞায় আটকে পড়া পেঁয়াজের একটি অংশ ভারত সরকার ছেড়ে দেয়ার সম্মতি দিলেও শনিবার বেনাপোলে কোনো ট্রাক আসেনি। কবে নাগাদ আসবে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি ওপারের রফতানিকারকরা।

তিনি বলেন, শুক্রবার ভারতের সিবিআইসি যে নির্দেশনা দিয়েছিল শনিবার সকালে পেট্রাপোল কাস্টমকে তারা আরও একটি নির্দেশনা দিয়েছে। ওই নির্দেশনায় বলা হয়েছে, গত সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বন্দর এলাকার যেসব পেঁয়াজের ট্রাকের লোড এক্সপোর্ট (লিইও) করা ছিল শুধুমাত্র সেই ট্রাকগুলো বাংলাদেশে যাবে।

তবে পেট্রাপোল বন্দর অভ্যন্তরে পাঁচটি পেঁয়াজের ট্রাক ছিল। এর মধ্যে একটি ট্রাকের লিইও করা ছিল। পেঁয়াজে পচন ধরায় বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রফতারিকারক সেই পেঁয়াজের লিইও বাতিল করে। এতে পেট্রাপোল বন্দরে লিইও করা কোনো পেঁয়াজের ট্রাক না থাকায় শনিবার ভারত থেকে বেনাপোল বন্দরে কোনো আসেনি পেঁয়াজের কোনো ট্রাক।

ভারতের পেট্রাপোল ক্লিয়ারিং এজেন্ট স্টাফ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী বলেন, পেঁয়াজ রফতানি বন্ধে ভারতের আদেশ প্রত্যাহার করতে আহ্বান জানানোর পর পূর্বের ঋণপত্রের (এলসি) পেঁয়াজ বাংলাদেশে রফতানির নির্দেশনা দিয়ে শুক্রবার রাতে বন্দর ও কাস্টমসহ বিভিন্ন দফতরে পত্র দেয় সিবিআইসি। সেই পত্রে বলা হয়েছে, ১৪ সেপ্টেম্বর ভারতের সব শুল্ক কাস্টমে নির্দেশনা দেয়া হয় বাংলাদেশে ৭৫০ মার্কিন ডলারের নিচে পেঁয়াজ রফতানি করা যাবে না।

jagonews24

বাংলাদেশের আমদানিকারকদের দাবি ও সরকারি তৎপরতায় ১৫ সেপ্টেম্বর ভারতের রফতানিকারকরা পেঁয়াজ রফতানির আবেদন জানান। তারই প্রেক্ষিতে ১৮ সেপ্টেম্বর পেঁয়াজ রফতানির অনুমতি দেয় ভারতের কেন্দ্রীয় শুল্ক অধিদফতর। তবে গত শনিবার সকালে বন্দর এলাকার যেসব পেঁয়াজের ট্রাকের লোড এক্সপোর্ট (লিইও) করা ছিল শুধুমাত্র সেই ট্রাকগুলো বাংলাদেশে যাবে এমন নির্দেশনা দেয়ার পর এই জটিলতা তৈরি হয়।

এদিকে নতুন করে লিইও করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। তবে নতুনভাবে লিইও করার পর সেটি কার্যকর হবে কি-না সেটা নিশ্চিত করতে পারেননি কার্তিক চক্রবর্তী।

বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমের কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা আকসির মোল্লা বলেন, নিয়ম অনুযায়ী ভারত থেকে কোনো পণ্যবাহী ট্রাক বাংলাদেশে প্রবেশের সময় কাস্টম থেকে গেট পাস নিতে হয়। সকাল থেকে ভারতীয় সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টের পক্ষ থেকে কোনো গেট পাস গ্রহণ না করায় শনিবারও পেঁয়াজের কোনো চালান আসেনি বেনাপোল বন্দরে। কবে আসবে তা নিশ্চিত করে জানানো হয়নি।

জামাল হোসেন/এএম/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]