ভেলায় ভেসে সুমনকে আর মাদরাসায় যেতে হবে না

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি বেনাপোল (যশোর)
প্রকাশিত: ০৫:৩৬ পিএম, ০১ অক্টোবর ২০২০
মাদরাসায় যাওয়ার জন্য সুমনকে নৌকাটি উপহার দেয়া হয়

যশোরের শার্শায় উদ্ভাবক মিজানুর রহমানের উদ্যোগে স্বপ্ন পূরণ হলো শার্শা হাফিজিয়া মাদরাসার ছাত্র মো. আবু তালহা সুমনের। তার বাসা থেকে বের হতেই পড়ে বেতনা নদী।

নদী পারাপারের জন্য নৌকাটি উপহারস্বরূপ দেয়া হলো তাকে। ছেলের লেখাপড়ার সুযোগ-সুবিধার জন্য নৌকাটি তার খুব উপকার হবে বলে জানান তালহার ভূমিহীন বাবা উপজেলার বেড়ি নারায়ণপুর গ্রামের হাসানুজ্জামান।

বৃহস্পতিবার (০১ অক্টোবর) বেলা ১১টার দিকে বেড়ি নারায়ণপুর বেতনা নদীর তীরে তার হাতে নৌকা তুলে দেন আর্থিক সহায়তাকারী ও প্রধান অতিথি গদখালী ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক নবীননগর মিতালী সংঘের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন।

মাদরাসাছাত্র আবু তালহা সুমন বলেন, বেতনা নদী পারাপার হতে আমার অনেক কষ্ট হতো। কলাগাছ কেটে ভেলা তৈরি করে যাতায়াত করা লাগতো। অনেক সময় নদীতে পড়ে আবার বই-খাতা ভিজে যেত।

এজন্য ঠিকমতো মাদরাসায় যেতে পারতাম না। দেশসেরা উদ্ভাবক মিজানুর রহমানের সহযোগিতায় আমার লেখাড়ার সুবিধার্থে ব্যবসায়ী আলমগীর ভাইয়া আমাকে নৌকা উপহার দিয়েছেন। এজন্য আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি এবং একই সঙ্গে যাদের সহযোগিতায় আমি আজ নৌকা পেয়েছি তাদের ধন্যবাদ জানাই।

jagonews24

আবু তালহার বাবা হাসানুজ্জামান বলেন, আমি খুবই গরিব ও ভূমিহীন মানুষ। সরকারি খাসজমিতে থাকি। আমার ছেলে তালহা মাদরাসায় লেখাপড়া করে। তার পড়ার এতটাই আগ্রহ বেতনা নদী ভেলায় করে পার হয়ে প্রতিদিন মাদরাসায় যায়। পানিতে পড়ে গেলেও কখনও মাদরাসায় যাওয়া বন্ধ করেনি। উদ্ভাবক মিজান ভাই ও তার অন্যান্য সহযোগীর প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।

নৌকা হস্তান্তরের সময় উপস্থিত ছিলেন নাভারণ ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক উজ্জ্বল হোসেন, সাংবাদিক সোহেল রানা, আবু হাসান আকিব ও নূর হোসেন আরিফ।

এ সময় প্রধান অতিথি আলমগীর হোসেন আবু তালহার লেখাপড়ার জন্য সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

জামাল হোসেন/এএম/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]