আবারও ছাত্রলীগ নেতার মাদক সেবনের ছবি ভাইরাল

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নারায়ণগঞ্জ
প্রকাশিত: ০২:২৬ পিএম, ২১ অক্টোবর ২০২০

নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের এক নেতার মাদক সেবনের ছবি ভাইরাল হওয়ার রেশ না কাটতেই এবার মহানগর ছাত্রলীগ নেতার মাদক সেবনের ছবি ছড়িয়ে পড়েছে। এতে ছাত্রলীগ নেতাদের নিয়ে নানা ধরনের সমলোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় ও ছাত্রলীগ নেতাদের সূত্রে জানা গেছে, ফতুল্লার চাঁদমারী এলাকার মীর্জা তোফা আহম্মেদ তোলারাম কলেজের অনার্সের শিক্ষার্থী। ২০১৯ সালের জুলাইয়ে মহানগর ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে অর্থ সম্পাদকের পদ পান তোফা। তার বিরুদ্ধে তোলারাম কলেজে বিভিন্ন শিক্ষার্থীকে মারধর, চাষাঢ়া রেল স্টেশনে প্রকাশ্যে মাদক সেবন ও বিক্রির অভিযোগ রয়েছে।

এছাড়াও কলেজ ক্যাম্পাসের আশপাশে মাদক বিক্রি ও চাষাঢ়া প্লাটফর্মে ছিনতাইকারীদের মদদ দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে এ নেতার বিরুদ্ধে।

এর আগে জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিরাজের মাদক সেবনের ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়।

প্রশাসন বলছে, মাদকের বিরুদ্ধে তারা জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করছে।

তবে ছাত্রলীগের পদধারী নেতাদের মাদক সেবনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ গণমাধ্যমে প্রকাশের পরও পুলিশকে ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি বলে মন্তব্য নাগরিক সমাজের।

এদিকে ওই দুই ছাত্রলীগ নেতাকে চেনেন ছাত্রলীগের এমন কয়েকজন কর্মী জানান, তারা নিয়মিত ইয়াবা সেবন করেন। এমনকি অন্যকেও ইয়াবা সেবনে আমন্ত্রণ জানান।

মাদক সেবন ও বিভিন্ন অভিযোগ নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা মির্জা তোফা আহমেদ জানান, এগুলো সব মিথ্যা। এগুলোর সঙ্গে আমি জড়িত না।

তবে ছবিতে মাদক সেবন করতে দেখা যাওয়ার প্রসঙ্গে ‘মন্তব্য নেই’ বলেই ফোন কেটে দেন।

মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ বলেন, আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। যদি মাদক সেবনের প্রমাণ পাওয়া যায়, তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। মহানগর ছাত্রলীগের রাজনীতি করে কেউ অন্যায় করে পার পাবে না। আমার কমিটির মেয়াদকালে কারও অপরাধে সম্পৃক্ততার প্রমাণ পাওয়া গেলে সে কমিটিতে থাকতে পারবে না।

এ ব্যাপারে ফতুল্লা থানার ওসি আসলাম হোসেন জানান, মির্জা তোফা আহমেদের বিরুদ্ধে আগে আমার কাছে কোনো অভিযোগ ছিল না। সে যদি মাদকের সঙ্গে জড়িত থাকে তাহলে অবশ্যই তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শাহাদাত হোসেন/এফএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]