মাছ চুরির মামলায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার গ্রেফতার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফরিদপুর
প্রকাশিত: ০৬:৪৭ পিএম, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০
ফরিদপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার এম এ সালাম লাল

মাছ চুরির মামলায় ফরিদপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার এম এ সালাম লালকে (৭২) গ্রেফতার করা হয়েছে। শুক্রবার (৪ ডিসেম্বর) বেলা পৌনে ১১টার দিকে শহরের ভাটিলক্ষ্মীপুরে নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করে ফরিদপুর দুই নম্বর ফাঁড়ির পুলিশ।

এদিন বিকেলে এম এ সালামকে ফাঁড়ি থেকে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় নেয়া হয়। শনিবার (৫ ডিসেম্বর) দুপুরে জেলার মুখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেফতারের বিষয়ে এম এ সালামের মেয়ে এলিজা আক্তার বলেন, ‘হয়রানিমূলক মামলায় বাবাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। দেশের জন্য যুদ্ধ করে তাকে মাছ চুরির মামলায় গ্রেফতার করা হলো। এটা জাতির জন্য একটি লজ্জাজনক উদাহরণ হয়ে থাকবে। বিজয়ের মাসে এখন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে এভাবে অপমান করা হবে তা ভাবতে পারিনি।’

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার ছিলেন এম এ সালাম লাল। তিনি ফরিদপুর পৌরসভার কমিশনার নির্বাচিত হয়েছিলেন।

ফরিদপুর দুই নম্বর পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক মো. রাকিবুল ইসলাম বলেন, গত ১৩ জুলাই এম এ সালামের বিরুদ্ধে মামলা করেন শহরের সিঅ্যান্ডবি ঘাট এলাকার হাশেম ফকির। মামলার এজাহারে বলা হয়, হাশেম সিঅ্যান্ডবি ঘাট এলাকায় একটি পুকুরে মাছের চাষ করেছিলেন। ওই মাছ চাষ করার জন্য তার কাছে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন এম এ সালাম। চাঁদার টাকা না দেয়ায় সালাম তার লোকজন নিয়ে পুকুরের সব মাছ মেরে নিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, এম এ সালামের বিরুদ্ধে টেপাখোলা গরুর হাটে চাঁদাবাজির অভিযোগে আরেকটি মামলা রয়েছে। মামলাটির তদন্ত চলছে।

এলিজা আক্তার বলেন, ‘অসুস্থ থাকায় শুক্রবার বাড়িতে ঘুমাচ্ছিলেন বাবা। এ সময় পুলিশ সদস্যরা বাড়িতে এসে পুলিশ সুপার সাহেব কথা বলবেন বলে বাবাকে নিয়ে যান। পরে সারাদিন তাকে দুই নম্বর পুলিশ ফাঁড়িতে বসিয়ে রাখা হয়। বাবাকে কোতোয়ালি থানায় নেয়া হয় সন্ধ্যার দিকে। সেখানেই তাকে সারারাত বসিয়ে রেখে শনিবার আদালতে পাঠানো হয়।’

ফরিদপুর সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার শামসুদ্দীন ফকির এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বলেন, ‘এম এ সালাম একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। তিনি ৭২ বছর বয়সী বৃদ্ধ। তার হার্টে রিং পরানো। উচ্চ রক্তচাপসহ তার আরও অনেক শারীরিক সমস্যা রয়েছে। ইচ্ছাকৃতভাবে হয়রানি করার জন্য নানা ধরনের মামলা দিয়ে তাকে নাজেহাল করা হচ্ছে। এটা কোন ধরনের রাজত্ব বুঝতে পারছি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘৭২ বছর বয়সী একজন ব্যক্তি ও বীর মুক্তিযোদ্ধাকে মাছ চুরির অপবাদ দিয়ে গ্রেফতার করা কতটা গ্রহণযোগ্য হতে পারে? রোববার (৬ ডিসেম্বর) আমরা মুক্তিযোদ্ধা সংসদে বসে আলোচনা করে এ ব্যাপারে করণীয় নির্ধারণ করবো।’

বি কে সিকদার সজল/এমএসএইচ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]