আলিবাবা ডোরে ২৫ শতাংশ ছাড়

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:২৭ পিএম, ১৭ জানুয়ারি ২০১৮

বাসস্থানের সৌন্দর্য আর নিরাপত্তা- দুটোই ভাবতে হয়। এজন্য মনমুগ্ধকর সুদৃশ্য দরজা নিয়ে এসেছে আলিবাবা ডোর। তবে সৌন্দর্যের সঙ্গে নিরাপত্তার বিষয়টি প্রাধান্য দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এজন্য প্রতিটি দরজায় রয়েছে আট থেকে ১০টি লক। যা বাইরে থেকে বোঝার কোনো উপায় নেই। বাণিজ্য মেলা উপলক্ষে এসব দরজার ওপর পাঁচ থেকে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দেয়া হচ্ছে।

বাণিজ্য মেলার মূল ফটক দিয়ে প্রবেশ করে হাতের বাম পাশের দ্বিতীয় গলিতে আলিবাবা ডোরের সুদৃশ্য একতলা প্যাভিলিয়ন। স্টল নং জিএমআই- ১১। প্রবেশমুখে রয়েছে দৃষ্টিনন্দন দরজা। এছাড়া প্যাভিলিয়নটি সাজানো রয়েছে বিভিন্ন ডিজাইনের সোফা সেট, ডাইনিং টেবিল ও কিচেন কেবিনেট। মেলা উপলক্ষে এগুলোর ওপর পাঁচ থেকে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া কিচেন কেবিনেটের ওপর রয়েছে ১৫ শতাংশ ছাড়।

মেলা উপলক্ষে কিছু নতুন দরজা এনেছে আলিবাবা। অ্যারাবিয়ান ডোর ৩০ হাজার টাকা, সোফা সেট দুই লাখ ২৫ হাজার থেকে দুই লাখ ৭৫ হাজার টাকা, ডাইনিং টেবিল এক লাখ ৫৫ হাজার থেকে এক লাখ ৮০ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কিচেন কেবিনেট বিক্রি হচ্ছে পার স্কয়ার ফিট এক হাজার ৬৫০ টাকায়।

আলিবাবা ডোর প্যাভিলিয়নের ইনচার্জ গোলাম মোস্তফা বলেন, আমরা হোলসেলে পণ্য বিক্রি করি। ইচ্ছা করলে কেউ এখান থেকে অর্ডার দিয়ে বাইরের শাখা থেকে পণ্য সংগ্রহ করতে পারবেন।

ali-baba

তিনি বলেন, মেলায় সব শ্রেণির ক্রেতা-দর্শনার্থী আসেন। তারা আমাদের পণ্য সম্পর্কে বিভিন্ন মতামত দেন। এবার আমরা কাঠের দরজার ওপর বেশি গুরুত্ব দিয়েছি। বিশেষ করে দরজার নিরাপত্তার বিষয়ে অধিক জোর দেয়া হয়েছে। এটিই আমাদের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ। একই সঙ্গে ২০ বছরের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টি দেয়া হচ্ছে।

আলিবাবার কাঠের দরজায় সিজন ও কেমিক্যাল ট্রিটমেন্ট করা বিধায় অনেক টেকসই। দরজাগুলো বিক্রি হচ্ছে সাত হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকায়।

এছাড়া আছে হাই সিকিউরিটির স্টিলের দরজা। এ দরজায় সাত থেকে ১০টি লক রয়েছে। বিক্রি হচ্ছে ১৭ হাজার থেকে তিন লাখ ২৫ হাজার টাকায়। আরো আছে এমএস ডোর, এসএস ডোর, ব্রোঞ্জ ডোর, টয়লেটের জন্য অ্যালুমিনিয়াম ও পিভিসি ডোর। এসব দরজা বিক্রি হচ্ছে চার হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকায়।

প্যাভিলিয়ন ঘুরে দরজা দেখছিলেন সাকিব নামের এক দর্শনার্থী। বলেন, এখন ঘুরে ঘুরে পছন্দ করে রাখছি। মেলার শেষ দিকে এসে কিনবো।

এমএ/এমএআর/এমএস