জঙ্গি দমনে শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসায় ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:০৫ পিএম, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ | আপডেট: ০৭:১০ পিএম, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

একদিন আগে ত্রিপুরা সফরে গিয়ে পাকিস্তানের ব্যাপক সমালোচনা করেছিলেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। সফরের দ্বিতীয় দিন সোমবার সেই রাজনাথই প্রতিবেশী বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা করলেন।

রোববার রাজনাথের হুঁশিয়ারি ছিল, পাকিস্তান একটি বুলেট খরচ করলে ভারতীয় সেনা তিনটি বুলেট ফিরিয়ে দেবে। সোমবার বাংলাদেশ সম্পর্কে তিনি বলেন, উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করছে শেখ হাসিনার সরকার। বাংলাদেশ সরকারকে এ কাজের জন্য ধন্যবাদ দিয়ে থাকেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারও। ভোটের ময়দানে বাম ও বিজেপি যুযুধান হলেও এ প্রশ্নে রাজনাথের সুর মানিকের সঙ্গে মিলে যায়।

ভারতের এ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অবশ্য বাংলাদেশের ওই সক্রিয়তার জন্য মোদি সরকারের সঙ্গে তাদের সুসম্পর্ককেই ‘কৃতিত্ব’ দিয়েছেন। আগরতলায় রোড-শো শেষে তিনি বলেন, ‘ত্রিপুরার বিভিন্ন উগ্রপন্থি সংগঠনের গোপন আস্তানা ছিল বাংলাদেশে। সেখানকার সরকার তাদের উৎখাত করেছে। তাই ত্রিপুরায় শান্তি এসেছে। বিজেপি-শাসিত কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশের সরকারের সম্পর্কের কারণেই এটা সম্ভব হয়েছে।’

রাজনাথ এ কথা বলার আগের দিনই ত্রিপুরার সীমান্তে বাংলাদেশের হবিগঞ্জের চুনারুঘাট এলাকায় অস্ত্র ও রকেট লাঞ্চার উদ্ধার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন।

রাজনাথের দাবি, অটল বিহারী বাজপেয়ীর আমলেই ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের উন্নতির শুরু হয়েছে। উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলোর জন্য আলাদা মন্ত্রণালয় তৈরি করা হয় তখন। ত্রিপুরার সঙ্গে সরাসরি ট্রেন সংযোগও বিজেপি সরকার করেছে। পাশাপাশিই তার প্রতিশ্রুতি, রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় এলে সরকারি কর্মচারীদের জন্য সপ্তম বেতন কমিশন হবে।

রাজনাথের মন্তব্য, ‘এ রাজ্যে যে পদ্ম ফুটবে, তার ব্যবস্থা মানিক সরকার করেছেন! গত ২৫ বছরে এত আবর্জনা তৈরি করেছে, তার মধ্যেই পদ্ম ফুটবে!’ আনন্দবাজার।

এসআইএস/আইআই