দেহ ঘড়ির ভিডিও বানিয়ে ৩ কোটি টাকা জিতল কিশোর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:২৭ পিএম, ০৬ নভেম্বর ২০১৮

জীব বিজ্ঞান, পদার্থ বিজ্ঞান এবং গণিতের নানা বিষয় নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে আয়োজিত ব্রেকথ্রু জুনিয়র চ্যালেঞ্জ প্রতিযোগিতায় দেহঘড়ির কার্যকলাপের একটি ভিডিও বানিয়ে প্রায় ৩ কোটি টাকার পুরস্কার জিতেছেন ভারতীয় এক কিশোর। প্রত্যেক বছর চলতি বছরও বৈশ্বিক এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে।

সারকার্ডিয়ান রিদম বা জীব দেহের ২৪ ঘণ্টার একটি ঘড়ি এবং দিনের বিভিন্ন সময়ে দৈনন্দিন কাজকর্মে কীভাবে প্রভাব ফেলে তার উপর একটি ভিডিও তৈরি করেছিলেন ভারতের বেঙ্গালুরু প্রদেশের ওই কিশোর। এবারের ওই প্রতিযোগিতায় পুরস্কার জয়ী ভারতীয় এ কিশোরের নাম সময় গোরিকা। বয়স মাত্র ১৬ বছর।

ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বেঙ্গালুরুর ন্যাশনাল পাবলিক স্কুলের ছাত্র সময়। ব্রেকথ্রু জুনিয়র চ্যালেঞ্জ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন তিনি। জীব দেহের ২৪ ঘণ্টার একটি ঘড়ি দিনের বিভিন্ন সময়ে কাজকর্মে ফেলা প্রভাব ভিডিওতে দেখিয়েছেন সময়। মাত্র ৩ মিনিটের ওই ভিডিওতে দেহ ঘড়ির পুরো কার্যকলাপ বিভিন্ন ধরনের ছবি ও নকশার মাধ্যমে উপস্থাপন করেছেন সময় গোরিকা।

ব্রেকথ্রু জুনিয়র চ্যালেঞ্জ বৈশ্বিক ভিডিও প্রতিযোগিতা। জীব বিজ্ঞান, পদার্থ বিজ্ঞান এবং গণিতের নানা দিক নিয়ে ভিডিও তৈরির এই প্রতিযোগিতা হয় যুক্তরাষ্ট্রে। প্রতিযোগিতায় বিশ্বের যেকোনো দেশের মাত্র ১৩ থেকে ১৮ বছর বয়সী সৃজনশীল কিশোররা অংশ নিতে পারেন।

পুরস্কার জয়ের খবর পাওয়ার পর বেঙ্গালুরু মিররকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সময় বলেন, তিনি খুব খুশি এবং এটি অবিশ্বাস্য লাগছে। তবে বড় ধরনের এই বিজ্ঞান প্রতিযোগিতায় পুরস্কায় জেতায় তিনি খুবই আনন্দিত। তার এই পুরস্কার জয়ের পেছনে স্কুল কর্তৃপক্ষের পরামর্শ, সহায়তার কথা স্বীকার করে কৃতজ্ঞতা জানান সময়।

চলতি বছরের এই প্রতিযোগিতায় সময়ের এই স্কুল থেকে নিখিয়া শমসের (১৬) নামের অপর এক কিশোর পপুলার ভোটে বিজয়ী হয়েছে।

সময় বলেন, তার পরিবারে পার্কিনসন্স রোগে আক্রান্ত এক সদস্য রয়েছেন। তাই মেডিকেল ট্রিটমেন্টের ব্যাপারে সারকার্ডিয়ান রিদম বা দেহঘড়ির কার্যকলাপের প্রভাব নিয়ে খুব আগ্রহী ছিলেন তিনি। আর সেই আগ্রহ থেকেই সারকার্ডিয়ান রিদম নিয়ে ওই ভিডিও তৈরি করেছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত এই প্রতিযোগিতায় ১৫ জন ফাইনালে উঠেছিলেন; এরমধ্যে তিনজনই ছিলেন ভারতীয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সবাইকে পেছনে ফেলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন বেঙ্গালুরুর ১৬ বছরের কিশোর সময়।

এসআইএস/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]