ডিএসসিসির অভিযানে ৯ মামলায় ৮৭ হাজার টাকা জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৪৯ পিএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, ক্যাবল অপসারণ ও এডিস মশার প্রজননস্থল শনাক্তকরণে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। রোববার অভিযানের ২৪তম দিনে চারটি ভ্রাম্যমাণ আদালত সব মিলিয়ে ৯টি মামলা দায়ের ও নগদ ৮৭ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা আদায় করেন।

আজ কাজী মো. ফয়সালের নেতৃত্বে নগরীর ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের নীলক্ষেত এলাকায় মশার প্রজননস্থল চিহ্নিতকরণে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে ২৯টি স্থাপনা পরিদর্শন করে দুটি স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় মামলা দায়ের ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন তিনি।

অঞ্চল-২ এর আরামবাগ ও মতিঝিল এলাকায় এডিস মশার প্রজননস্থল শনাক্তকরণে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফেরদৌস ওয়াহিদ। তিনি ৪৫টি স্থাপনা পরিদর্শন করেন এবং চারটি স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় চারটি মামলা দায়ের ও ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন।

এদিকে নিয়মিত উচ্ছেদ কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় আজ পল্টন মোড় থেকে নয়াপল্টনের ভিআইপি টাওয়ার পর্যন্ত অবৈধ ক্যাবল অপসারণে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন ডিএসসিসির সম্পত্তি কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মনিরুজ্জামান।

তিনি ১৫টি ইলেকট্রিক পোল থেকে অবৈধ ক্যাবল অপসারণ করেন এবং পল্টন মোড়ে নান্না বিরিয়ানির রন্ধনকাজে ব্যবহৃত বর্ধিতাংশ ফুটপাতের ওপর থাকায় নান্না বিরিয়ানিকে দুই হাজার টাকা জরিমানা করেন। এছাড়াও একটি অস্থায়ী টং দোকান উচ্ছেদ করে তাদের ৫০০ টাকা জরিমানা করেন।

এদিকে করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ এইচ ইরফান উদ্দিন আহমেদ আজ আজিমপুর, পলাশী, নীলক্ষেত ও কাঁটাবন এলাকায় অবৈধ ক্যাবল অপসারণে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। তিনি ১৪টি ইলেকট্রিক পোল থেকে অবৈধ ক্যাবল অপসারণ করেন।

এএস/বিএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]