শুধু ফুটবলে নয়, যত্ন করলে সব জায়গায় সফলতার সক্ষমতা রাখে বাংলাদেশ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:১৯ এএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

শুধু ফুটবলে নয়, বাংলাদেশের মানুষকে যত্ন করলে সব জায়গায় সফল হওয়ার সক্ষমতা রাখে। বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন তার এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে এসব কথা লিখেছেন।

ব্যারিস্টার সুমন লেখেন, সৌদি আরবে ৪২তম বাদশাহ আব্দুল আজিজ আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে বাংলাদেশি হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীম। প্রতিযোগিতায় ১১১টি দেশের ১৫৩ জন হাফেজ কোরআন তেলোয়াতে অংশ নেয়। তার জন্য রইলো দোয়া ও শুভ কামনা।

জানা গেছে, সৌদি আরবের মক্কায় ৪২তম বাদশাহ আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা-২০২২ এ অংশ নেয় বাংলাদেশ। ১০ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়ে প্রতিযোগিতাটি ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলে।

প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিনিধি হয়ে অংশ নেন ঢাকার মারকাযু ফয়জিল কুরআন আল ইসলামির ছাত্র হাফেজ সালেহ আহমদ তাকরিম। মে মাসে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের তত্ত্বাবধানে আয়োজিত বাছাই প্রক্রিয়ায় ‘খ’ গ্রুপ থেকে একমাত্র প্রতিযোগী হিসাবে তাকরিম বাংলাদেশের প্রতিনিধি নির্বাচিত হয়।

এর আগে ১৯০ জন প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতার সারাবিশ্বে প্রথম হয় বাংলাদেশের হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীম। ইরানের রাজধানী তেহরানের আন্দিশাহ (আল-ফিকির) হলে গত ৫ মার্চ পর্যন্ত সপ্তাহব্যাপী হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

১৯০ প্রতিযোগীর মধ্যে থেকে বাছাই করে চূড়ান্ত পর্বের জন্য পাঁচ দেশের সেরা পাঁচজন মনোনীত হয় সেখানে। তাদের মধ্যে বাংলাদেশের প্রতিযোগী সালেহ আহমাদ তাকরীম সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে প্রথমস্থান অর্জন করে।

ইরানে প্রথম হওয়ার পর এবার লিবিয়ায় আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতায় সপ্তম স্থান লাভ করেছেন রাজধানীর মিরপুরে অবস্থিত মারকাযু ফয়জিল কুরআন আল ইসলামী মাদরাসায় অধ্যয়নরত ১৩ বছরের শিক্ষার্থী হাফেজ সালেহ আহমদ তাকরীম। দেশটির রাজধানী বেনগাজিতে অনুষ্ঠিত দশম আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বে সপ্তম স্থানের অধিকারী হলো।

লিবিয়ার হায়ার অথরিটি ফর এনডাওমেন্টস অ্যান্ড ইসলামিক অ্যাফেয়ার্স তত্ত্বাবধানে রাজধানী বেনগাজিতে আয়োজিত এই আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতায় ১০ জনকে পুরস্কার দেওয়া হয়।

তার মধ্যে হাফেজ সালেহ আহমদ তাকরীম সপ্তম স্থান লাভ করেছে। সেখানে তাকে ৩০ হাজার দিনার (প্রায় ছয় লাখ টাকা) সম্মাননা দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, গত ১০ জুন থেকে লিবিয়ার হায়ার অথরিটি ফর এনডাওমেন্টস অ্যান্ড ইসলামিক অ্যাফেয়ার্স তত্ত্বাবধানে রাজধানী বেনগাজিতে ৪০টি দেশের প্রতিনিধিদের মধ্যে প্রতিযোগিতা শুরু হয়। এরপর পাঁচ দিনব্যাপী প্রতিযোগিতার পর চূড়ান্ত পর্যায়ে ১০ প্রতিযোগীকে নির্বাচন করা হয়।

আন্তর্জাতিক এ প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছে- লিবিয়ার আবদুল সাইয়িদ আল মাউন, দ্বিতীয় হয়েছে- কঙ্গোর বুনা তিয়াম, তৃতীয় হয়েছে- থাইল্যান্ডের হাসান থামুহ, চতুর্থ হয়েছে- সিরিয়ার মুহাম্মদ ইসা হাজ আহমদ, পঞ্চম হয়েছে- রাশিয়ার আইয়াম উদ্দিন ফখরুদ্দিন, ষষ্ঠ হয়েছে- আবদুল্লাহ বশির আবদি, সপ্তম হয়েছে- বাংলাদেশের সালেহ আহমদ তাকরীম, অষ্টম হয়েছে- সুইডেনের শুয়াইব মুহাম্মদ শাফেয়ি, নবম হয়েছে- বেলজিয়ামের জাকারিয়া আবুল আকল এবং দশম হয়েছে ইয়েনের বিলাল আবদুল্লাহ আহমদ।

তাকরীমের বাড়ি টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর উপজেলার ভাদরা গ্রামে। তার বাবাও একজন হাফেজ ও মাদরাসা শিক্ষক। তার নাম আব্দুর রহমান। হাফেজ তাকরীমের মা একজন গৃহিণী।

হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় দেশের মাটিতেই চমক দেখিয়েছিল হাফেজ তাকরীম। ২০২০ সালের রমজান মাসে বেসরকারি টেলিভিশনে বাংলাভিশনে আয়োজিত হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয়। মাত্র সাড়ে ৯ বছর বয়সে সম্পূর্ণ কুরআন মুখস্ত করে।

এফএইচ/এমআরএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।