জার্মানির হয়ে খেলার সিদ্ধান্ত নিলেন জামাল

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৫৬ পিএম, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ইংল্যান্ডের হয়ে বয়সভিত্তিক ফুটবলে খেললেও, জাতীয় দল হিসেবে জার্মানিকে বেছে নিলেন বায়ার্ন মিউনিখের বিস্ময় বালক জামাল মুসিয়ালা। জার্মানির জাতীয় দলের কোচ জোয়াকিম লো’র সঙ্গে আলোচনা করেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ১৭ বছর বয়সী এ কিশোর প্রতিভা।

বয়সভিত্তিক ফুটবলে মাঠ কাঁপানোর ফলে জামালের সামনে সুযোগ আসে ইংল্যান্ড ও জার্মানি- দুই দলের যেকোনো একটিতে খেলার। ইংল্যান্ডের যুব দলে খেললেও, তিনি সিনিয়র পর্যায়ে জার্মানি দলেই খেলবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার রাতে চলতি চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোর প্রথম লেগের ম্যাচে বায়ার্নের হয়ে মাত্র ১৭ বছর ৩৬৩ দিন বয়সে গোল করেছেন জামাল। টুর্নামেন্টের নকআউট পর্বে তার চেয়ে কম বয়সে গোল করেছেন কেবল বোয়ান ক্রকিচ (১৭ বছর ২১৭ দিন)।

এই ম্যাচের পর নিজের জন্মভূমি জার্মানিকেই জাতীয় দল হিসেবে বেছে নেয়ার সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন জামাল। দ্য অ্যাথলেটিককে তিনি বলেছেন, ‘কোন দেশের হয়ে খেলব? এ প্রশ্নের উত্তরের জন্য আমি অনেক ভেবেছি। কোথায় আমার ভবিষ্যত ভালো হবে? কোথায় বেশি সুযোগ পাবো?- এসব ভেবেছি।’

‘সবশেষে আমি আমার ভেতরের কথাই শুনেছি, যা আমাকে বারবার বলেছে যে জার্মানির হয়ে খেলাই ঠিক সিদ্ধান্ত হবে, যেখানে আমি জন্ম নিয়েছি। জোয়াকিম লোয়ের সঙ্গে মিউনিখে দেখা করেছিলাম এবং খুব পরিষ্কারভাবে তিনি আমাকে জাতীয় দলে জায়গা পাওয়ার পথ দেখান।’

তবে এ সিদ্ধান্ত নেয়া যে সহজ ছিল না তা জানিয়ে জামাল বলেন, ‘যাই বলি না কেন, এটি সহজ ছিল না। ইংল্যান্ড আমার জন্য নিজের ঘরের মতো। ইংল্যান্ডের জন্য আমার অনুভূতি প্রকাশের যথেষ্ঠ ভাষা জানা নেই। কারণ সেখানে আমার অনেক স্মৃতি রয়েছে। আমার একটা হৃদয় জার্মানির জন্য, আরেকটা ইংল্যান্ডের জন্য।’

জামাল মুসিয়ালা জন্মেছেন জার্মানির স্টুটগার্টে। তার মা একজন জার্মান নাগরিক, তবে বাবা ব্রিটিশ-নাইজেরিয়ান। তার ক্যারিয়ারের শুরুর প্রায় পুরোটাই কেটেছে ইংলিশ ক্লাব চেলসিতে। ২০১১ সালে ক্লাবটিতে যোগ দেন তিনি।

ইংল্যান্ডের যুব দলের হয়ে ২২টি ম্যাচও খেলেছেন জামাল। এছাড়া ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-২১ দলের সবশেষ দুইটি অনুশীলন ক্যাম্পেও ছিলেন তিনি। তবু শেষপর্যন্ত জামালের গন্তব্য গিয়ে ঠেকল জার্মানিতে।

এসএএস/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]