হাবিপ্রবির ডিনের কার্যালয় ভাঙচুর

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি দিনাজপুর
প্রকাশিত: ০৯:০২ পিএম, ২৪ মে ২০১৮

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) কৃষি অনুষদের পুনরায় ভর্তির টাকার সমন্বয় নিয়ে ডিন অফিস ভাঙচুর করেছে কয়েকজন শিক্ষার্থী।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে তাকেও মারধর করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টার দিকে কৃষি অনুষদের ডিনের কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, কৃষি অনুষদের স্পেশাল ব্যাচ ১৭’র ১৫ জন শিক্ষার্থীর পুনরায় ভর্তির টাকার সমন্বয় ফাইল রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. সফিউল আলমের কার্যালয়ে থেকে স্বাক্ষর হয়ে ডিন কর্যালয়ে আসে।

ভর্তির টাকার সমন্বয় নিয়ে কৃষি অনুষদের ছাত্র সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াদ, সহ-প্রচার সম্পাদক বাধন ও সদস্য শৈকত কথা বলতে যায়।

একপর্যায়ে তারা উত্তেজিত হয়ে ডিন ড. মো. আতাউর রহমানের অফিস ভাঙচুর করে এবং তাকে মারার হুমকি দেয়। এ সময় ছবি তুলতে গেলে একটি অনলাইন পত্রিকার ক্যাম্পাস প্রতিনিধি মুজাহিদ মুয়াজকে মারধর করা হয়।

কৃষি অনুষদের ছাত্র সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াদ বলেন, কৃষি অনুষদের স্পেশাল ব্যাচ ১৭’র ১৫ জন শিক্ষার্থী ভর্তির নিময় অনুয়ায়ী ৩ হাজার করে টাকা দিয়ে ভর্তি হয়।

পরে ডিন মো. আতাউর রহমান জানান, তাদেরকে ৪ হাজার ২২০ টাকা নতুন করে দিতে হবে। এতে আমারা আপত্তি জানিয়ে বলি ৩ হাজার টাকা আগে দেয়া হয়েছে তাই এখন ১২২০ টাকা করে ছাত্ররা দেবে। কিন্তু ডিন তাতে রাজি না হয়ে বলেন পুরো টাকাই দিতে হবে।

বৃহস্পতিবার ফাইলটি রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. সফিউল আলমের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য গেলে স্যার আমাদের সঙ্গে ভালো আচরণ করেননি। ফলে ছাত্ররা উত্তেজিত হয়ে কিছুটা ভাঙচুর করেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডিন ড. আতাউর রহমান বলেন, একটি অফিসিয়াল ফাইল কখনো ছাত্রদের হাতে দেয়া যায় না। নিয়ম মেনেই ফাইলটি পাঠানোর সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করার পরও চতুর্থ বর্ষের রিয়াদ ও বাধন নামে দুই ছাত্র অতি উৎসাহী হয়ে আমার অফিস ভাঙচুর করে এবং আমাকে মারধরের হুমকি দেয়।

এমদাদুল হক মিলন/এএম/পিআর

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - jagofeature@gmail.com