রাজবাড়ী কৃষি অফিসের এক চেয়ারে দুই কর্মকর্তা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি রাজবাড়ী
প্রকাশিত: ১০:০১ এএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২
মো. জনি খান ও মো. বাহাউদ্দিন সেক

অফিসে কর্মকর্তা দুইজন, তবে চেয়ার একটি। ফলে পালাক্রমে দুই কর্মকর্তাই অফিস করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমন ঘটনা ঘটেছে রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি অফিসে।

এদিকে, এ ঘটনায় জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কৃষি অফিসের অন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে। গত বুধবারও (৭ ডিসেম্বর) রাজবাড়ী উপজেলা কৃষি অফিসে দুই কর্মকর্তা অফিস করেছেন।

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, গত ১৪ নভেম্বর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. বেনজীর আলম সই করা এক আদেশে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জনি খানকে রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ও রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. বাহাউদ্দিন সেককে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হিসেবে বদলি করা হয়।

এরপর ফরিদপুর অঞ্চলের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক স্বপন কুমার খাঁ গত ২৮ নভেম্বর মো. জনি খানকে রাজবাড়ীতে পদায়ন ও বাহাউদ্দিন সেককে অবমুক্ত করে চিঠি ইস্যু করেন। ওইদিনই রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হিসেবে জনি খান যোগদান করেন। আর এতেই বাধে বিপত্তি।

সদ্য-যোগদান করা রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জনি খান বলেন, ১৪ নভেম্বর বদলি আদেশ হওয়ার পর জেলা উপ-পরিচালকের নিদের্শে ২৭ নভেম্বর দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে আমি ২৮ নভেম্বর রাজবাড়ীতে যোগদান করতে আসি। কিন্তু এখান থেকে বদলি হওয়া উপজেলা কৃষি অফিসার বাহাউদ্দিন সেক আমাকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেননি। তারপরও আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আদেশেই এখানে আছি এবং অফিস করছি। তবে একই সময় দুইজন অফিসে উপস্থিত হলে চেয়ারে বসায় বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হচ্ছে।

অন্যদিকে, বদলির আদেশপ্রাপ্ত রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. বাহাউদ্দিন সেক বলেন, চাকরিতে বদলি একটি স্বাভাবিক ঘটনা এবং বদলি হলে ওই কর্মস্থলে অবশ্যই যেতে হবে। কিন্তু এটা যেহেতু স্বাভাবিক বদলি, সেহেতু অফিসের কাজ-কর্ম গুছিয়ে দ্বায়িত্ব হস্তান্তর করতে হবে। তবে যিনি যোগদান করেছেন, তিনি কোন তারিখে রিলিজ ও কোন তারিখে যোগদান করবেন সে বিষয়ে জেলা পর্যায়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও যোগদান করা কর্মকর্তা আমাকে কিছু না জানিয়েই যোগদান করেছেন। তারপরও আমি যোগদান করা কর্মকর্তাকে জানিয়েছি, অফিসের কাজ-কর্ম গুছিয়ে দ্বায়িত্ব বুঝিয়ে দেবো।

এ বিষয়ে রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এস এম সহীদ নূর আকবর বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আদেশে বদলি হওয়ার পরও বদলিকৃত সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বাহাউদ্দিন সেক নতুন কর্মস্থল কমলগঞ্জে না গিয়ে টালবাহানা করছেন। পরবর্তীকালে বৃহত্তর ফরিদপুর অঞ্চলের প্রধান বাহাউদ্দিনকে অবমুক্ত করে দ্বায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে চিঠি ইস্যু করলেও তিনি আজ পর্যন্ত দ্বায়িত্ব বুঝিয়ে দেননি। উল্টো তিনি বলছেন, তাকে না জানিয়ে আসা হয়েছে এবং তাকে সময় দিতে হবে।

সহীদ নূর আকবর আরও বলেন, বাহাউদ্দিন যা করছেন, তা ঠিক নয়। নতুন কর্মকর্তাকে দ্বায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়াই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। এদিকে, সদরের নতুন কর্মকর্তা জনি খান যোগদান করে অফিস করছেন। তাই বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

রুবেলুর রহমান/এমআরআর/এএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।