রোহিঙ্গা নিপীড়ন বন্ধের দাবি ইউরোপীয় ইউনিয়নের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:৩৩ পিএম, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ০২:৩৭ পিএম, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭
ছবি : মাহবুব আলম

রোহিঙ্গাদের ওপর সেনাবাহিনীর তাণ্ডব বন্ধের জন্য মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) আইন প্রণেতারা। রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা নারী, শিশু নির্বিশেষে নির্যাতন, গণহত্যা ও ধর্ষণের জেরে চার লাখ রোহিঙ্গা জীবন বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসার পর বৃহস্পতিবার তারা মিয়ানমারের প্রতি এ আহ্বান জানান।

মিয়ানমারের প্রতি ইইউ আইন প্রণেতাদের দাবি, অবিলম্বে রোহিঙ্গাদের নির্যাতন, হত্যা ও ধর্ষণ বন্ধ করাসহ তাদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেয়াও বন্ধ করতে হবে। রাখাইনের সহিংসতাপূর্ণ এলাকা এবং রোহিঙ্গাদের আশ্রয় নেয়া স্থানে দুর্যোগ সহায়তা দানকারী বিভিন্ন সংগঠন ও সংস্থাকে প্রবেশের আহ্বান জানিয়েছেন এবং তাদের প্রবেশে সহযোগিতার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতিও অনুরোধ করেন।

roh

জাতিগত ও ধর্মীয়ভাবে বিদ্বেষ ছড়ানো এবং সামাজিক বৈষম্য ও সহিংসতা মোকাবেলায় যথাযথ পদক্ষেপ না নেয়ার কারণে মিয়ানমার সরকার এবং শান্তিতে নোবেল জয়ী নেত্রী অং সান সু চির প্রতি তারা তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।

ইইউ আইন প্রণেতারা আরও উল্লেখ করেন, মানবাধিকার রক্ষার জন্য সংগ্রাম এবং সংখ্যালঘুদের প্রতি আন্তর্জাতিক আইনানুসারে সম্মান প্রদর্শনের কারণেই সু চিকে শান্তিতে নোবেল দেয়া হয়েছে। অথচ সু চির বর্তমান কার্যকলাপে তারা অত্যন্ত ব্যথিত।

roh

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর তাণ্ডবে জীবন বাঁচাতে গত ২৫ আগস্টের পর থেকে চার লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। তাদের মধ্যে নারী এবং শিশুর সংখ্যাই বেশি।

জাতিসংঘসহ বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা সেখানে নির্বিচারে হত্যা, ধর্ষণ এবং গ্রামের পর গ্রাম পুড়িয়ে দেয়াকে জাতিগত নিধন হিসেবে উল্লেখ করেছে। সহিংসতা বন্ধে মিয়ানমার সরকার এবং অং সান সু চিকে চাপ দিয়ে আসছে আন্তর্জাতিক মহল। তারপরও সহিংসতা সমানহারে চলছে। বাংলাদেশে আসছে হাজার হাজার শরণার্থীর ঢল।

roh

এদিকে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর অত্যাচার, নির্যাতন, হত্যা, ধর্ষণের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ।

জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের প্রধান জেইদ রাদ আল হুসেইন রাখাইন প্রদেশের সহিংসতার ঘটনাকে পাঠ্যপুস্তকে পঠিত জাতিগত নিধনের উদাহরণ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

সূত্র : ওয়াশিংটন পোস্ট

কেএ/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :


টাইমলাইন