মানিকগঞ্জের ইউপি চেয়ারম্যানের বরখাস্তের আদেশ হাইকোর্টে স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৫৩ এএম, ২২ অক্টোবর ২০২০

অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়। এ-সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনটি ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া চেয়ারম্যানের নাম মো. কামাল হোসেন।

বুধবার (২১ অক্টোবর) হাইকোর্টের বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে শুনানি করেন ব্যারিস্টার হুমায়ুন কবির পল্লব ও ব্যারিস্টার কাওসার আহমেদ।

আদালতের আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেন আইনজীবী ব্যারিস্টার হুমায়ুন কবির পল্লব।

গত ৭ সেপ্টেম্বর মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহম্মেদ চৌধুরী এ-সংক্রান্ত বরখাস্তের প্রজ্ঞাপন জারি করেন। পরে চেয়ারম্যান মো. কামাল হোসেন ১৫ সেপ্টেম্বর এ বিষয়ে ব্যাখ্যাসহ জবাব আইনজীবীর মাধ্যমে সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরে দাখিল করেন। গত ৪ অক্টোবর রিট করেন। ওই রিটের শুনানি নিয়ে এই আদেশ দেন হাইকোর্ট।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, হরিরামপুর উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কামাল হোসেনের বিরুদ্ধে গভীর নলকূপ বসানোর কথা বলে অর্থ আদায়ের অভিযোগ স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় জেলা প্রশাসকের সুপারিশে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ স্থানীয় সরকার শাখার উপ-পরিচালক ফৌজিয়া খান জানান, এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ স্থানীয়ভাবে প্রমাণিত হওয়ায় স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন-২০০৯ অনুযায়ী জেলা প্রশাসকের সুপারিশে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। এ বিষয়ে আগামী ১০ কার্যদিবসের মধ্যে ওই অভিযুক্ত জনপ্রতিনিধিদের জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের সংশ্লিষ্ট দফতরে জবাব দিতে হবে।

বর্তমানে অভিযোগটির তদন্ত চলছে বলেও জানান তিনি।

এফএইচ/এসআর/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]