মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৩৯ পিএম, ২৪ নভেম্বর ২০২১
ফাইল ছবি

জমিজমা সংক্রান্ত এক মামলায় মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলমসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে কেন আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা হবে না—তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্টে। একই সঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না তাও জানতে চেয়েছেন আদালত।

এ বিষয়ে আবেদন নিয়ে বুধবার (২৪ নভেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি মামুনুর রহমান ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রুল জারি করে এ আদেশ দেন।

২০১৮ সালের ১৪ অক্টোবর ও ২০২১ সালের ২১ জুন দেওয়া আদেশ প্রতিপালন না করায় মেয়র জাহাঙ্গীরসহ চারজনের বিরুদ্ধে রুল জারি করা হয়। রুলে মেয়র জাহাঙ্গীর আলম ছাড়া বাকি বিবাদীরা হলেন- আলফাজ, হারুনুর রশিদ ও ফজলুল হক। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে তাদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

হাইকোর্টে আবেদনকারীর আইনজীবী ব্যারিস্টার আবুল কালাম আজাদ গণমাধ্যমকে রুল জারির বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, গাজীপুরের সদর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের একটি জমি নিয়ে বিরোধের জেরে দখলে থাকা ব্যক্তি ২০১৮ সালে হাইকোর্টে রিট করেন। তখন হাইকোর্ট নিষেধাজ্ঞা দিলে আবেদনকারীরা আগের মতো ব্যবহার করে আসছিলেন। কিন্তু চলতি বছরের শুরুতে মেয়র জাহাঙ্গীর ও তার লোকজন ওই জমি নিজের দাবি করে ব্যবহারে বাধা দেন। তাই জাহাঙ্গীর আলমসহ চারজনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ আনেন আশরাফ উদ্দিন আহমেদ। এরপর আদালত অবমাননার অভিযোগে মেয়র জাহাঙ্গীরসহ চারজনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল জারি করেন আদালত।

 

সম্প্রতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করার দায়ে মেয়র জাহাঙ্গীরকে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। পাশাপাশি আ’লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকেও তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। দল থেকে বহিষ্কার হওয়ার পর কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন তিনি।

এছাড়া গতকাল দুপুরে রাজবাড়ী ১নং আমলি আদালতে বঙ্গবন্ধুকে কটূক্তি ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়ায় মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। মানবিক বাংলাদেশ সোসাইটির রাজবাড়ী পৌর শাখার সভাপতি শশী আক্তার মামলাটি করেন।

এফএইচ/এআরএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]