জলবায়ু প্রশ্নে জি-২০ নেতাদের প্রতিশ্রুতি নেই বললেই চলে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৩৮ এএম, ০১ নভেম্বর ২০২১

বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির দেশের নেতারা একত্রিত হয়েছিলেন ইতালির রাজধানী রোমে। দুই দিনব্যাপী জি-২০ সম্মেলনে অংশ নেন তারা। জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলায় বিশ্ব উষ্ণায়ন সীমিত রাখার চেষ্টা চালিয়ে যেতে একমত হলেও তেমন কোনো প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেননি বিশ্ব নেতারা। এর মাঝেই আজ সোমবার (১ নভেম্বর) জলবায়ুবিষয়ক শীর্ষ সম্মেলনের মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হতে যাচ্ছে।

স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে শুরু হওয়া কপ২৬ সম্মেলনকে প্যারিস চুক্তি-পরবর্তী সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জলবায়ু সম্মেলন হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। এতে নতুন ঘোষণা দিতে পারেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। যদিও প্রেসিডেন্ট বাইডেন জি-২০ সম্মেলনের পর এক মন্তব্যে বলেছেন তিনি হতাশ হয়েছেন, বিশেষ করে চীন ও রাশিয়া গুরুত্বপূর্ণ কোনো প্রস্তাবনা উপস্থাপন করেনি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট সাংবাদিকদের বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব ঠেকাতে চীন ও রাশিয়া কোনো ধরনের প্রতিশ্রুতিমূলক বিষয় তুলে ধরেনি।

১৯টি দেশ ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত জি-২০ জোটের দেশগুলোই বিশ্বে ৮০ শতাংশ কার্বন নিঃসরণের জন্য দায়ী। কিন্তু সম্মেলনের যৌথ বিবৃতিতেও নেতারা গ্রীন হাউস গ্যাস কমানো নিয়ে শক্ত কোনো অবস্থানের পথে হাঁটলেন না।

যদিও ইতালির প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘি সম্মেলনের শেষ বক্তব্যে বলেছেন, জি-২০ জোটের সব দেশই কার্বন নিঃসরণ শূন্যে নামিয়ে আনার লক্ষ্যে পৌঁছাতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে গত ৩১ অক্টোবর উদ্বোধন হওয়া বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলন, কপ২৬ চলবে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত। জলবায়ুবিষয়ক শীর্ষ কপ২৬ সম্মেলনেও বিশ্লেষকরা বলছেন, জি-২০র পর নতুন করে কোনো চুক্তি হওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই ক্ষীণ।

সূত্র: রয়টার্স, বিবিসি

এসএনআর/টিটিএন/এএসএম

টাইমলাইন  

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]