আবরারের রক্তে শান্তি ফিরুক সড়কে

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৫৮ পিএম, ১৯ মার্চ ২০১৯

সড়কে শান্তির পক্ষে আন্দোলন করেছে। নিরাপদ সড়কের দাবিতে সহপাঠীদের সঙ্গে স্লোগান দিয়েছে। অথচ আজ আবরারের রক্তেই রঞ্জিত হলো সড়ক। আমাদের চোখেরমণি এভাবে চোখের আড়াল হয়ে যাবে, তা ভাবতেই পারছি না। মানুষের জীবন এত সস্তা! নিজেকে সান্ত্বনা দিতে পারছি না কোনোভাবেই। তবুও মন থেকে চাইছি, আবরারের রক্তে শান্তি ফিরুক সড়কে।

এভাবেই বলছিলেন সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত আবরার আহাম্মেদ চৌধুরীর ছোট চাচা মাসুদ আহম্মেদ চৌধুরী। ভাতিজাকে হারিয়ে শোকে বিহ্বল মাসুদ চৌধুরী। শোকের ছায়া গোটা পরিবারে। আবরার নিহতের ঘটনা আর সড়কের বিশৃঙ্খলা নিয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন মাসুদ চৌধুরী।

আরও পড়ুন> চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন আবরার

আবরার সম্পর্কে বলেন, ‘পাহাড়সম স্বপ্ন ছিল আবরারের। সেনা পরিবারে বেড়ে ওঠা ওর। আমাদের সবার আদরের ছিল। দুই ভাইয়ের মধ্যে বড় ছিল বলে দায়িত্ববোধের বিষয়টি আবরার বেশ আগে থেকেই রপ্ত করেছিল। মেধায়ও প্রথম ছিল সে। ‘ও’ লেভেল, ‘এ’ লেভেল পাস করে সেনাবাহিনীর ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন বুনেছিল। আজ সবই দুঃস্বপ্ন আমাদের জন্য। এমন শান্ত, বিনয়ী ছেলেকে মাটিচাপা দিয়ে আসলাম। কী নির্মম বাস্তবতা!’

সড়ক দুর্ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘মৃত্যু সংবাদ দেখে ঘুমাতে যাই আর ঘুম থেকে উঠে মৃত্যুর খবরই শুনি। নির্মম, নিষ্ঠুর দুর্ঘটনার খবরে আমরা অভ্যস্ত হয়ে পড়ছি। আজ আবরারের মৃত্যুর পর সড়কে আন্দোলন হচ্ছে। আবেগে সহপাঠীরা বিভিন্ন দাবিতে সড়ক অবরোধ করছে। লাভ কী? এমন আন্দোলন তো আগেও হলো। মৃত্যুর মিছিল তো ঠেকানো গেল না। তবুও এই অকাল মৃত্যু ঠেকাতে সবার প্রতি সজাগ হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।’

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রাজধানীর বসুন্ধরা গেট এলাকায় সু-প্রভাত বাসের চাপায় মারা যান আবরার আহমেদ চৌধুরী। তিনি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আরিফ চৌধুরীর বড় ছেলে।

আরও পড়ুন> নিরাপদ সড়ক চেয়েছিলেন নিহত আবরার

সড়কের শৃঙ্খলা রক্ষায় রাজধানীতে গত রোববার (১৭ মার্চ) থেকে শুরু হয়েছে পঞ্চমবারের মতো ট্রাফিক সপ্তাহ। এরই মধ্যে বাসচাপায় একজন শিক্ষার্থীর মৃত্যু হলো।

এ ঘটনায় ঘাতক বাসচালকের শাস্তির দাবিতে সকাল থেকেই প্রগতি সরণি সড়ক অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। ঘাতক বাসচালকের শাস্তি, নতুন বাসচালকদের যথাযথ নিয়মে ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান, গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় জেব্রা ক্রসিংয়ের ব্যবহার, জেব্রা ক্রসিংয়ের সামনে সিসি ক্যামেরা স্থাপন, প্রগতি সরণির সামনে আবরার আহম্মেদ চৌধুরীর নামে পথচারী সেতু স্থাপনের দাবিতে শিক্ষার্থীরা আগামীকাল ফের আন্দোলনে নামবে বলে ঘোষণা দিয়েছে।

এএসএস/এমআরএম/এমএস

টাইমলাইন