এলপিএল নয়, ঘরোয়া ক্রিকেট দিয়েই ফিরবেন সাকিব!

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৫৭ পিএম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

নিষেধাজ্ঞার খড়গ ঝুলছে এখনো। মুক্ত হতে বাকি আরও ৩১ দিন। আগামী ২৯ অক্টোবর এক বছরের নিষেধাজ্ঞা মুক্ত হচ্ছেন ‘চ্যাম্পিয়ন’ সাকিব আল হাসান। সেদিন থেকেই সব ধরনের ক্রিকেটে অংশ নিতে পারবেন ‘বাংলাদেশের প্রাণ, সাকিব আল হাসান।’

ধারনা করা হচ্ছিল, সাকিব শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজেই মাঠে ফিরবেন। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন খুব বড় মুখ করে বলেছিলেন, সাকিব শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টেই মাঠে ফিরবে। সাকিবও যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরে নীরবে-নিভৃতে সে প্রস্তুতিই নিচ্ছিলেন।

যেহেতু আইসিসির নিষেধাজ্ঞা আছে, তাই বিকেএসপির দুই শিক্ষক নাজমুল আবেদিন ফাহিম আর মোহাম্মদ সালাউদ্দীনের অধীনে বিকেএসপিতে থেকে নিজেকে মাঠে ফেরানোর জন্য প্রস্তুত করছিলেন সাকিব। আইসিসির প্রেসক্রিপশন মেনে গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে একদম নিজেকে দুরে রেখেছেন সাকিব।

কিন্তু যে লক্ষে তার এত আয়োজন, তা গেছে ভেস্তে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্টে আর তার মাঠে ফেরা হচ্ছে না। কারণ, ওই সিরিজই বাতিল। এখন প্রশ্ন হলো, তাহলে কবে কখন কোন আসরে মাঠে ফিরবেন বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার?

আজ যে মুহূর্তে বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কার টেস্ট সিরিজ বাতিল হয়েছে, ঠিক সেই মুহূর্ত থেকে সাকিব ভক্তরা স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন, লঙ্কানদের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে না হলেও শ্রীলঙ্কার মাটিতেই হয়ত আবার এক বছর পর মাঠে ফিরবেন সাকিব।

কারণ, সাকিব যখন আইসিসির সাজামুক্ত হবেন, ঠিক প্রায় একই সময় মানে অক্টোবরের তৃতীয় ও শেষ সপ্তাহে শুরু হবে লঙ্কান ফ্র্যাঞ্চাইজি আসর এলপিএল (লঙ্কান প্রিমিয়ার লিগ)।

বলার অপেক্ষা রাখে না, ওই আসরের নিলামে সাকিবের নাম আছে। তিনি টি-টোয়েন্টির অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার, আইপিএলের মত টি-টোয়েন্টির এক নম্বর আসরেও, সাকিবকে নিতে হইচই পড়ে যায়। যেহেতু ব্যাটিং আর বোলিংটা সমান কার্যকর, তাই সাকিবের মত অলরাউন্ডার দলে থাকা মানেই বাড়তি শক্তিতে বলিয়ান হওয়া।

এর কারণেই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সাকিবের কার্যকরিতা ও ডিমান্ড দুই’ই বেশি। এখন লঙ্কান প্রিমিয়ার লিগের নিলামে যেহেতু সাকিবের নাম আছে, তাই তার ডিমান্ডও থাকবে এবং বলেই দেয়া যায়, শাস্তিমুক্ত হয়ে ঠিকই এলপিএলে খেলবেন সাকিব।

এখন প্রশ্ন হলো বিসিবি কি তাকে এনওসি দেবে? সাকিব ভক্ত ও সমর্থকরা যতই স্বপ্ন দেখুন না কেন, কঠিন সত্য হলো নিষেধাজ্ঞা মুক্তির পরও এলপিএল খেলতে সাকিবের বিসিবির অনুমতি লাগবে এবং বিসিবির অনাপত্তি পত্র (নো অবজেকশন সার্টিফিকেট) হাতে নিয়েই লঙ্কান প্রিমিয়ার লিগ খেলতে যেতে হবে।

বিসিবি কি সাকিবকে সেই অনুমতি দেবে? তার হাতে কি অনাপত্তি পত্র তুলে দেয়া হবে? সে প্রশ্নের উত্তর হলো নেতিবাচক। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন আজ বিকেলে খুব সতর্কতার সাথে একদম কুটনৈতিক ভাষায় সে প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন। যা শুনে মনে হচ্ছে, সাকিবের এলপিএল খেলার সম্ভাবনা খুব কম।

তাকে ঘরোয়া ক্রিকেটই খেলতে হবে এবং সম্ভবত প্রিমিয়ার লিগ দিয়েই আবার মাঠে ফেরা হবে সাকিবের। সে সম্ভাবনাই সবচেয়ে বেশি। তা না হলেও দেশের মাটিতে আগামী এক ও দুই মাসে যে ক্রিকেট আসর হবে, তা দিয়েই মাঠে ফেরা হবে বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডারের।

ভাববেন না, পাপন সরাসরি এলপিএল খেলার কথা ‘না’ করে দিয়েছেন। যে সাকিবকে প্রায় জোর করে জাতীয় দলের পক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট খেলাতে আগ্রহী ছিলেন, সেই সাকিবের এলপিএল খেলা প্রসঙ্গে নাজমুল হাসান পাপনের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমাদের এখানেই (দেশে প্রিমিয়ার লিগ, বিসিএল ও তিন চার দলের অংশগ্রহণে কর্পোরেট লিগ) তো লিগ শুরু হয়ে যাচ্ছে। খেলা শুরু হয়ে যাচ্ছে এখানে।’

শেষ কথাতেই পাপন বুঝিয়ে দিলেন, সাকিবের শ্রীলঙ্কান প্রিমিয়ার লিগে খেলার সম্ভাবনা নেই। শুধু সাকিবই নন, অন্য কারও নেই। তিনি বলেন, ‘সাকিব কেন, বাংলাদেশের কোন ক্রিকেটারেরই এলপিএল খেলার খেলার সম্ভাবনা দেখি না।’

এআরবি/আইএইচএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]