তাসকিনের গতি ও আগ্রাসন সবসময় দেখতে চান ডোনাল্ড

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:২৬ পিএম, ২৯ জুন ২০২২

কাঁধের চোটের কারণে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের টেস্ট সিরিজে তাসকিন আহমেদকে পায়নি বাংলাদেশ দল। চোট কাটিয়ে উইন্ডিজের বিপক্ষে সাদা বলের দুই সিরিজেই মাঠে থাকবেন তাসকিন। সাম্প্রতিক সময়ে পেসারদের মধ্যে তার উন্নতিই হয়েছে সবচেয়ে বেশি।

যে কারণে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে সিরিজ শুরুর আগে তাসকিনের কাছ থেকে প্রত্যাশার মাত্রাটাও বেশি। সেই প্রত্যাশা পূরণে কোন পথে হাঁটতে হবে, তাসকিনকে সেটিও জানিয়েছেন বাংলাদেশ দলের পেস বোলিং কোচ অ্যালান ডোনাল্ড।

প্রায় তিন মাস পর মঙ্গলবার দলের সঙ্গে পূর্ণাঙ্গ অনুশীলন করেছেন তাসকিন। যেখানে ডোনাল্ডের সঙ্গে একান্তে কথা বলতে দেখা যায় তাকে। তাই স্বাভাবিকভাবেই কৌতূহল জাগে পেস বোলিং কোচের সঙ্গে কী কথা বললেন তাসকিন? উত্তর জানা গেছে তাসকিনের মুখ থেকেই।

তাসকিন জানালেন, গতি ও আগ্রাসন ধরে রাখার বার্তা দিয়েছেন ডোনাল্ড। কখনও কখনও সাফল্য না এলেও তাসকিনের গতি-আগ্রাসন থেকে সরে যাওয়া ঠিক হবে বলে মনে করেন এ দক্ষিণ আফ্রিকান কিংবদন্তি। সে কথাই জানালেন তাসকিন।

সংবাদমাধ্যমে প্রশ্নের জবাবে তাসকিন বলেছেন, ‘আমি ওর সঙ্গে কথা বলছিলাম যে আমি ইনজুরি থেকে এসেছি এখন আমার দায়িত্বটা কী হবে? ও আমাকে এটাই বুঝাতে চাচ্ছিল যে, তুমি যে টাইপের বোলার, তোমার দায়িত্ব হচ্ছে গতি ও আগ্রাসন।’

‘ও আমাকে বলছিল, কিছু সময় তুমি অনেক রান দেবে, কিছু সময় তুমি একাই উইকেট নিয়ে ম্যাচ জিতিয়ে দেবে- কিন্তু তোমার দায়িত্ব থেকে তুমি নিজেকে সরাবে না। তোমার যেটা রোল, সেটাতেই তুমি ফোকাস থাকো। দিন যত যাবে, রিদম আরও বেটার হবে। আমরা আরও কাজ করবো সামনে।’

এসময় দীর্ঘদিন পর দলের সঙ্গে অনুশীলনের অনুভূতি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘খুবই ভাল লাগলো প্রায় তিন মাস পর দলের সঙ্গে পুরোপুরি অনুশীলন করলাম। ফিন্ডিং, বোলিং ব্যাটিং- সবকিছুই করলাম। শুরুতে একটু জড়তা ছিল। পরে যখন শুরু করলাম সব কিছুই স্বাভাবিকভাবে গেছে। শেষ করার পর খুবই ভালো লাগছে।’

এদিকে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার ও বাংলাদেশ দলের টেস্ট অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের মতে, বর্তমানে বাংলাদেশের পেসারদের জন্য রোল মডেল তাসকিন আহমেদ। যিনি গত কয়েক বছরে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজের বোলিংয়ে যোগ করেছেন ভিন্ন মাত্রা।

সাকিবের কাছ থেকে এমন প্রশংসা পেয়ে স্বাভাবিকভাবেই আপ্লুত তাসকিন, ‘অবশ্যই আমি অনেক অনুপ্রাণিত হয়েছি এবং আমার অনেক ভালো লেগেছিল সাকিব ভাইয়ের ওই কথাগুলো শুনে। এটা আমাকে বাড়তি অনুপ্রেরণা দিচ্ছে যে সামনে আমাকে আরও ভালো করতে হবে।’

এসএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]