‘রেফারির বাঁশি বসুন্ধরার পক্ষে সাইফের বিপক্ষে’

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৩৩ পিএম, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২২

ঘরোয়া ফুটবলে এখন আলোচনায় রেফারিং। সম্প্রতি বেশ কয়েকটি ম্যাচে বাজে রেফারিং হয়েছে বলে সমালোচনা চলছে। বিষয়টি বাফুফে সভাপতি কাজী মো. সালাউদ্দিনের কানেও গেছে। এরপরই তিনি বাফুফের হেড অব রেফারির সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা করেছেন শনিবার।

রোববার কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়াম বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগের উদ্বোধনী অনুষষ্ঠানে গিয়ে সেখানে দেশের শীর্ষ রেফারিদের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা করেছেন বাফুফে সভাপতি।

রেফারিদের সঙ্গে আলোচনা শেষে গণমাধ্যমের সামনে এসে তিনি রেফারিংয়ের মান নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। কাজী মো. সালাউদ্দিন কয়েকটি ম্যাচের উদাহরণ টেনে বলেছেন, ‘সর্বশেষ বসুন্ধরা কিংস ও পুলিশের ম্যাচে আমি রেফারিং নিয়ে অসন্তুষ্ট। কিছুক্ষণ আগে রেফারিদের সঙ্গে আলোচনা করেছি। সেখানে বলেছি কিছু কিছু সিদ্ধান্ত বসুন্ধরা কিংসের পক্ষে গেছে। আমি রেফারিকে বলেছি - কেন এমন হচ্ছে? আরেকটা কথা আমি বলেছি তাদেরকে যে, সাম্প্রতিক সময়ে দেখছি সাইফের বিপক্ষে অনেক সিদ্ধান্ত অন্যায়ভাবে দেওয়া হয়েছে। আপনারা এসব বিষয়ে সতর্ক হোন।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি একদিন আগে হেড অব রেফারির সঙ্গে বসেছিলাম। ভিডিও এবং অন্য উপাত্ত নিয়ে আমি তিন ঘণ্টা আলোচনা করেছি তার সঙ্গে। এগুলো আমার করার কথা নয়; কিন্তু আমি টেকনিক্যাল পার্সন বলে তার সঙ্গে নিয়ম-কানুন নিয়ে তর্ক করা গেছে। এখন আমি শীর্ষ সব রেফারিদের নিয়ে বসেছিলাম। তারা তাদের যুক্তি দিয়েছে, আমি আমার যুক্তি দিয়েছি। আমি চেষ্টা করছি সমস্যাগুলো দূর করতে। কারণ, এ জিনিসগুলো যেন আর না হয়। কোনটা আমার পক্ষেও না বিপক্ষেও না। আমার চেয়ে ফুটবল অনেক বড়।’

এই সমস্যা সমাধানে কাজ করা হচ্ছে উল্লেখ করে বাফুফে সভাপতি বলেছেন,‌ ‘ওদের সঙ্গে প্রতি নিয়ত বসে কিছু সমাধান করা যায়। এ ছাড়াও আমরা ভাবছি, কিছু বিদেশি রেফারি আনা যায় কি না। কিছু কিছু ম্যাচের জন্য। যেমন চ্যাম্পিয়ন ফাইটে থাকা এবং রেলিগেশনে থাকা দলগুলোর ম্যাচ। আমার অফিস এটা নিয়ে কাজ করছে। এখানে বাজেটের বিষয়ও আছে। তারপরও আমরা চেষ্টা করছি বিদেশি রেফারি আনার।'

আরআই/আইএইচএস/

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।