টিকটক বন্ধ হওয়ায় যা বললেন নুসরাত

বিনোদন ডেস্ক
বিনোদন ডেস্ক বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:০৬ এএম, ০২ জুলাই ২০২০

চীনের সাথে খুব খারাপ চলছে ভারতের সম্পর্ক। এই বৈরী সম্পর্ক প্রভাব ফেলেছে ভারতের নাগরিকদের মধ্যেও। তাই সবাই মিলে চীনের পণ্য বর্জনের মিছিলে যোগ দিয়েছেন।

তারই অংশ হিসেবে ভারতবাসীরা জনপ্রিয় ফান অ্যাপ টিকটক ত্যাগ করেছেন। আর তাই দেখে সরকারিভাবেও টিকটক নিষিদ্ধ হয়েছে ভারতে।

তবে কলকাতার নায়িকা নুসরাত জাহান এই বন্ধ নীতির সমালোচনা করেছেন। তার মতে কয়েকটি চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করলেই ইন্দো-চীন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের গুরুতর সমস্যার সমাধান হবে না। তিনি মনে করেন, দুই দেশের সম্পর্ক নিয়ে অনেক প্রশ্নেরই উত্তর মিলছে না এখনো। সেগুলো পর্যালোচনা করে দেখা উচিত সরকারের।

তবে সংসদ সদস্য এ নায়িকা কিন্তু সরকারের এই সিদ্ধান্তের মোটেই বিরোধিতা করেননি। নুসরাতের কথায়, টিকটক আমার কাছে অনুরাগীদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার একটা মাধ্যম ছাড়া আর কিছুই নয়। আর সেই অ্যাপ যদি দেশের স্বার্থে নিষিদ্ধ করে দেয়া হয়, সেক্ষেত্রে আমার পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। কিন্তু আমার সন্দেহ রয়েছে, শুধু কয়েকটি চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করলেই কি এই গুরুতর সমস্যার সমাধান হবে? সরকারের উচিত, জনসাধারণের পকেটে কোনোরকম টান না দিয়েই এর বিকল্প ব্যবস্থা করা। বিশেষ করে চীনা দ্রব্যই যাদের রুটিরুজি, তাদের জন্য। সরকারে উচিত এই সিদ্ধান্তের পাশাপাশি অবিলম্বেই তাদের জন্য বিকল্প কোনো ব্যবস্থা করা।

নরেন্দ্র মোদির চীন সফর থেকে কী পেয়েছে ভারত, এ নিয়ে গুরুতর প্রশ্ন তুলেছেন এমপি নুসরাত জাহান।

ভারতে প্লে-স্টোর কিংবা অ্যাপল স্টোর থেকেও বিদায় নিয়েছে এই জনপ্রিয় অ্যাপ। কারণ, সোমবারই দেশটির তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৬৯এ ধারায় অ্যাপটি নিষিদ্ধ করে দেয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে।

খুব কম সময়ের মধ্যেই টিকটক যে ভারতীয় বিনোদন জগতের তারকাদের কাছে হট ফেভারিট হয়ে উঠেছিল, তা বোধহয় অস্বীকার করার কোনো জায়গাই নেই। অভিনেত্রী তথা সংসদ সদস্য নুসরাত জাহান ছাড়াও টিকটকে অ্যাকাউন্ট রয়েছে মিমি চক্রবর্তীসহ আরও অনেক টলিতারকারই।

এলএ/বিএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]