অচেনা ক্রিকেটাররাই ঝামেলা বাঁধাবে, ভয় দেখাচ্ছেন ক্যারিবীয় অধিনায়ক

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:২৮ পিএম, ১৩ জানুয়ারি ২০২১

ওয়েস্ট ইন্ডিজের যে দলটি বাংলাদেশে খেলতে এসেছে, তাতে চেনা তারকা বলতে গেলে নেই। করোনার ভয়ে প্রথম সারির ১০-১২ জন ক্রিকেটার এই সফর থেকে সরে গেছেন। ফলে বলতে গেলে দ্বিতীয় সারির এক দল নিয়ে এসেছে ক্যারিবীয়রা।

সফরে তিনটি ওয়ানডে আর দুটি টেস্ট খেলবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দলটির হেড কোচ ফিল সিমন্স মেনে নিয়েছেন, ঘরের মাঠে তার দলের বিপক্ষে বাংলাদেশই ফেবারিট।

যদিও সিমন্স তার দলটিকে দুর্বল মানতে নারাজ। আজ (বুধবার) ভিডিও কনফারেন্সে একইরকম কথা বললেন ক্যারিবীয় দলের টেস্ট অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রেথওয়েটও। বরং নতুন মুখদের চেনা-জানা কম বলে এটা বাংলাদেশকেই বিপদে ফেলতে পারে, সতর্ক করে দিলেন তিনি।

ব্রেথওয়েট বলেন, ‘এটা বরং আমাদের জন্য কিছুটা অ্যাডভান্টেজ হবে। তারা আমাদের কয়েকজন খেলোয়াড়কে আগে কখনও খেলেনি। যদিও এরপরও আমাদের নিজেদের কাজটা ঠিকঠাকভাবে করতে হবে, সব বিভাগে শৃঙ্খল পারফরম্যান্স দেখাতে হবে।’

ব্রেথওয়েট মানছেন, তার দলটি তারকা ও সিনিয়র ক্রিকেটার ছাড়া অনভিজ্ঞ। কিছু ক্রিকেটার আছেন যাদের আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতা কম। তাই বলে নিজ দলকে হেলাফেলার চোখে দেখতে নারাজ ক্যারিবীয় টেস্ট অধিনায়ক।

তার মূল্যায়ন, ‘আমি মনে করি আমাদের দলটি ভালোই। কয়েকজনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলারই অভিজ্ঞতা নেই। আর কিছু ক্রিকেটার অল্প কিছু ম্যাচ খেলেছে। তবে আমার মনে হয় এই দলেরই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ভালো করার পর্যাপ্ত সামর্থ্য আছে।’

টেস্ট সিরিজে নিজে সামনে থেকে দলকে নেতৃত্ব দিতে চান, জানিয়ে রাখলেন ব্রেথওয়েট। তার কথা, ‘আমি সামনে থেকে নেতৃত্ব দিতে চাই। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে আমার কাজ হলো রান করা এবং দলকে একটা শক্ত ও মজবুত ভিতের ওপর দাঁড় করানো।’

দলটিতে নতুনদের সমাহার হয়েছে বলেই ভালো করার সুযোগ আরও বেশি, যুক্তি ব্রেথওয়েটের। ক্যারিবীয় দলপতির ভাষায়, ‘আমি জানি এই ছেলেরা সাফল্যের জন্য ক্ষুধার্ত। সাফল্য পেতে তারা যেকোনো কিছু করতে রাজি। যদি ব্যাটিং আর বোলিংয়ে এমনটাই হয়, তবে আমাদের দলকে জেতাতে সাহায্য করবে এটা। আমি তো সুযোগ দেখছি। তারা বিশ্বকে দেখাতে চাইবে, তারাও পারে, শুধু জায়গা ভরাটের জন্য আসেনি। তারা পারফর্ম করতে পারে এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ভালো খেলতে সক্ষম।’

এআরবি/এমএমআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]