প্রিয়ার অভিযোগ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০৮ পিএম, ২১ জুলাই ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতন সম্পর্কে প্রিয়া সাহা যে অভিযোগ করেছেন তা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। প্রিয়ার এমন কর্মকাণ্ডে আমরা জাতীয়ভাবে মর্মাহত। এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। সঙ্গে সঙ্গে তার রাষ্ট্রদ্রোহী অপরাধের জন্য দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে ইন্টার রিলিজিয়ান হারমোনি সোসাইটি আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা এসব বলেন।

বক্তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধীদের প্ররোচিত হয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে প্রিয়া সাহা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর বহুবিধ নির্যাতনের কল্পকাহিনি উপস্থাপন করে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছেন।

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন ইন্টার রিলিজিয়ান হারমোনি সোসাইটির চেয়ারম্যান মিঞা মজিবুর রহমান, সেক্রেটারি জেনারেল ড. মনোরঞ্জন ঘোষালসহ আয়োজক সংগঠনের সদস্যরা।

প্রসঙ্গত, ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের সংখ্যালঘু নির্যাতন সম্পর্কে মিথ্যা অভিযোগ করায় প্রিয়া সাহা ওরফে প্রিয়া বালা বিশ্বাসের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ এনে দুটি মামলা করা হয়েছে।

এর আগে গত ১৬ জুলাই ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার ২৭ ব্যক্তির সঙ্গে বৈঠক করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেখানে ১৬ দেশের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন। বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টন ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহাও প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পান।

প্রিয়া মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বলেন, ‘আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। বাংলাদেশে তিন কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান নিখোঁজ রয়েছে। দয়া করে আমাদের লোকজনকে সহায়তা করুন। আমরা আমাদের দেশে থাকতে চাই। এখনও সেখানে এক কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু রয়েছে। আমরা বাড়িঘর হারিয়েছি। তারা আমাদের ঘর পুড়িয়ে দিয়েছে, ভূমি দখল করে নিয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো বিচার পাইনি।’

এএস/এমআরএম/জেআইএম

টাইমলাইন