রোজিনাকে হেনস্তার ঘটনায় স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি ডিইউজের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৪:১৭ পিএম, ১৮ মে ২০২১ | আপডেট: ০৮:২৬ পিএম, ১৮ মে ২০২১

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সদস্য ও দৈনিক প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের মুক্তির দাবি জানিয়েছেন সংগঠনের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু। একইসঙ্গে তারা ঘটনার স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি করেছেন।

আজ মঙ্গলবার (১৯ মে) এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান সাংবাদিক নেতারা।

বিবৃতিতে ডিইউজে নেতারা বলেন, সোমবার (১৭ মে) সচিবালয়ে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে যেভাবে মানসিক ও শারীরিকভাবে হেনেস্তা করা হয়েছে এবং পরে অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে মামলা দায়েরের ঘটনা নজীরবিহীন। রোজিনা ইসলামের সঙ্গে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালেয়র দুষ্টু কর্মকর্তা সিন্ডিকেটের আশোভন আচরণের সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও স্বাধীন তদন্ত প্রয়োজন। প্রশাসনের এখতিয়ারবহির্ভূত স্বাধীন তদন্ত কমিটি করে তদন্তের ব্যবস্থা করতে হবে। যাতে স্বাধীন সাংবাদিকতার অন্তরায় হিসেবে জড়িত গোষ্ঠীকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হয়।

নেতারা আরও বলেন, অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট হচ্ছে অনুসন্ধানী ও বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে ভয়ানক কালাকানুন। এ আইনের অপপ্রয়োগে অনেক সময় সরকার ও জনসাধারণের তথ্য প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বড় ধরনের প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে। ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টেও বেশকিছু ধারা রয়েছে, যা পেশাগত দায়িত্ব পালনে বাধার সৃষ্টি ও মনস্ততাত্ত্বিক চাপে ফেলে দেয় সাংবাদিকদের। এসব ধারার ব্যাপারে এর আগেও সাংবাদিক সমাজ রাষ্ট্র ও সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে তাদের মতামত ও পর্যবেক্ষণ তুলে ধরেছেন। ডিইউজের স্পষ্ট দাবি হচ্ছে, গণতন্ত্র ও জনগণের তথ্য প্রাপ্তির স্বার্থে স্বাধীন সাংবাদিকতার প্রতিবন্ধক সব কালাকানুন অবিলম্বে বাতিল করতে হবে। একইসঙ্গে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের জন্য ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের কঠোরতা প্রয়োজনীয় হলেও সংবাদমাধ্যমের ক্ষেত্রে তার কয়েকটি ধারা অন্তরায় বলে মনে করে ডিইউজে।

বিবৃতিতে ডিইউজে নেতারা বলেন, সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নিঃশর্ত মুক্তির পদক্ষেপ না নিলে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন আরও বৃহত্তর আন্দোলনে যেতে বাধ্য হবে।

দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের জিরো টলারেন্সের নীতির বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিয়ে বিবৃতিতে আরও বলা হয়, এ কথা মনে রাখতে হবে সাংবাদিকরা হচ্ছেন রাষ্ট্রের প্রহরী। তারা কারো প্রতিপক্ষ নয়, তাদের বন্ধু ভাবুন। অনবরত শত্রু ভাবতে ভাবতে দূরে সরিয়ে দেবেন না। তাতে লুটেরাদেরই সুবিধা হয় বেশি। সরকারের অকাশচুম্বি নানা অর্জন ম্লান হয়ে যায়।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন

এদিকে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) আগামী ২০ মে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেয়া হয়। এছাড়া স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি প্রদানের কর্মসূচিও ঘোষণা করা হয়েছে। কর্মসূচিতে সাংবাদিকদের অংশগ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন ডিইউজে নেতারা।

এমইউ/এএএইচ/জিকেএস

টাইমলাইন  

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]