দুই সপ্তাহের মধ্যে দেশে ফিরবেন কাদের, আশা আ.লীগের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৫৮ পিএম, ০৬ মার্চ ২০১৯
ফাইল ছবি

সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের অবস্থা ক্রমান্বয়ে উন্নতির দিকে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। তিনি বলেছেন, আমরা আশা করছি, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যেই আমাদের দলের সাধারণ সম্পাদক সুস্থ অবস্থায় দেশে ফিরে আসবেন।’

বুধবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে ওবায়দুল কাদেরের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে হানিফ এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আমাদের সাধারণ সম্পাদক যেন একেবারে সুস্থ স্বভাবিকভাবে ফিরে আসতে পারেন সে অনুযায়ী চিকিৎসা হচ্ছে।

কবে নাগাদ তার বাইপাস সার্জারি করা হবে জানতে চাইলে হানিফ বলেন, ‘ডাক্তাররা প্রত্যশা করছেন, এভাবে যদি দ্রুত উন্নতির দিকে যান তাহলে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই ওনার বাইপাস সার্জারি করা হবে।’

এ সময় তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসকদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসকরা প্রাথমিকভাবে যে চিকিৎসা দিয়েছেন অর্থাৎ চিকিৎসরা তাদের দক্ষতার সঙ্গে যে পদক্ষেপ নিয়েছিলেন, এর জন্য আমাদের দলের নেতা প্রাণে বেঁচে গিয়েছিলেন। চিকৎসকরা যে দক্ষতা ও বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছেন আমরা তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, কৃষি ও সমবায় সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, উপ-দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ।

ওবায়দুল কাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে নেয়া হলেও বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে কেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে, এটা বৈষম্য। বিএনপির এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে হানিফ বলেন, ওবায়দুল কাদের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। দেশের জন্য তিনি জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করেছেন।তিনি দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের মধ্যে একজন। তার সঙ্গে খালেদা জিয়ার তুলনা করা দুঃখজনক, লজ্জাজনক। ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি বেগম খালেদা জিয়ার তুলনা করা ঠিক হবে না।

এইউএ/জেডএ/জেআইএম

টাইমলাইন