সাড়া দিচ্ছেন ওবায়দুল কাদের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৬:০৪ পিএম, ০৩ মার্চ ২০১৯

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ভিসি অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া বলেছেন, আমরা শতভাগ আশাবাদী তবে শঙ্কামুক্ত নই। ওনার অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। উনি চোখ খুলছেন, পা নাড়াচ্ছেন, কথা বলার চেষ্টা করছেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে আজ (রোববার) বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিল্টন হলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ড. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, ‘কেউ ডাকলে তিনি অবশ্যই রেসপন্স করছেন। তার হার্ট অ্যাটাক হওয়ার পর এনজিওগ্রাম করে রিং পরানো হয়েছে। বন্ধ হওয়া নালী দিয়ে ফের রক্ত চলাচল শুরু হয়েছে। তার যে রিপার্কুইশন ইনজুরি হয়েছে, সেটা থেকে বের হতে সময় লাগবে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে বলেছেন, চিকিৎসকরা যদি মনে করেন তাকে বিদেশে পাঠানো যায়, তবেই বিদেশে পাঠানো হবে। যদি চিকিৎসকরা মনে করেন বিদেশে পাঠানোর মতো অবস্থা তার নেই, তবে পাঠানো হবে না। এছাড়া যদি বিমানে ওঠার পর তার অবস্থার অবনতি হয় সেক্ষেত্রে সেই পরিস্থিতি সামাল দেয়ার মতো ইক্যুইপমেন্ট, এক্সপার্টিজ তাদের থাকে তবে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে তাকে পাঠানো হবে, না হলে নয়।’

এয়ার অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে সিঙ্গাপুরের চিকিৎসক দল ঢাকায় আসছে কিনা- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা কিছু জানি না। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ ব্যাপারে জানাতে পারে।’

দুপুরে ওবায়দুল কাদেরের হার্টবিট ৩০- এ নেমে এসেছিল কিনা জানতে চাইলে কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, ‘তখন ৩০-এ নেমে এসেছিল কিন্তু এখন ৯০ থেকে ১১০ এ ওঠা-নামা করছে। আমরা তার সুস্থতার ব্যাপারে আশাবাদী।’

সংবাদ সম্মেলনে কার্ডিওলোজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. সৈয়দ আলী আহসান বলেন, ‘শনিবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে ওবায়দুল কাদেরের হার্ট অ্যাটাক হয়। এ সময় তার বাসা থেকে আমাদের কাছে খবর পাঠানো হয়। আমাদের একজন চিকিৎসক তার বাসায় যান। তিনি প্রাথমিকভাবে দেখার পর কার্ডিওলোজির আইসিইউতে নিয়ে আসেন। নিয়ে আসার পর তার শরীরে তেমন কোনো পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় না। ইসিজি করতে করতে তার অবস্থা খরাপ হতে থাকে। তখন আমরা এনজিওগ্রাম করার সিদ্ধান্ত নেই। এনজিওগ্রাম করে তার তিনটি রক্তনালীতে ব্লক পাই। আগে থেকে ডায়াবেটিসে তার অবস্থা খারাপ ছিল।

যে তিনটি ব্লক পাওয়া গেছে তা ক্রিটিক্যাল। এগুলোর একটি ১০০ ভাগ, একটি ৯৯ ও একটি ৮০ ভাগ ব্লক। এর মধ্যে ৮০ ভাগের ব্লকটিতে রিং পরানো হয়েছে। অন্য দুটি ব্লক রয়েছে। রিং পরানোর পর দুই ঘণ্টা তার অবস্থা ভালোই ছিল। তারপর থেকে অবস্থা খারাপের দিকে যেতে থাকে। ব্লাড প্রেসার কমে যেতে থাকে এবং ইলেকট্রোলাইট ইমব্যালান্স হয়ে যেতে থাকে। তিনি চোখ খোলেন না এবং কথা বলেন না। ক্রিটিক্যাল স্টেজে চলে যান। এরপর তাকে আমরা আইএমপি যন্ত্র দেই। হেমোডাইনামিক স্ট্যাবিলিটি আমলে নিয়ে আমরা তাকে পরবর্তী থেরাপি দেব বা বাইপাস সার্জারি করতে পারি। এটা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। ২৪ থেকে ৭২ ঘণ্টা পার না হওয়া পর্যন্ত তার ব্যাপারে কিছু বলা যাচ্ছে না।’

ড. সৈয়দ আলী আহসান আরও বলেন, ‘কেউ যদি তাকে বিদেশে নিতে চান, নিতে পারেন। তবে তাদের ওই রকম ম্যান পাওয়ার থাকতে হবে, যেন তারা তাকে স্ট্যাবল অবস্থায় নিয়ে যেতে পারে।’

কার্ডিওলোজি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক অসিত বরণ অধিকারী বলেন, ‘হার্টের রোগীর যে কোনো সময় ছন্দপতন ঘটতে পারে। এক্ষেত্রে শরীরিক অবস্থা খারাপের দিকেও যেতে পারে যে কোনো সময়।’

এর আগে সকালে বুকে ব্যথা অনুভূত হলে দ্রুত ওবায়দুল কাদেরকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটের (সিসিইউ) ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের (আইসিসিইউ) ২ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন তিনি।

সকাল থেকেই তাকে দেখতে হাসপাতালের ডি-ব্লকের সামনে ভিড় করেন দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এদিকে রোববার বেলা ৩টা ৩৪ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন প্রধানমন্ত্রী। ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন তিনি। বিকাল সোয়া ৪টার দিকে তিনি বেরিয়ে যান।

বিকাল ৪টা ২৫ মিনিটে হাসপাতালে আসেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। পৌনে ৫টার দিকে তিনি হাসপাতাল থেকে বের হয়ে আসেন।

বিএসএমএমইউ সূত্র জানায়, ওবায়দুল কাদেরের পাশে কিছু সময় কাটান রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। তার শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন তারা। কর্তব্যরত চিকিৎসকরা এ সময় ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা এবং চিকিৎসার সার্বিক বিষয়ে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন।

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী চিকিৎসাধীন ওবায়দুল কাদেরের আশু আরোগ্য কামনা করেন এবং তার রোগমুক্তির জন্য দেশবাসীর প্রতি প্রার্থনার আহ্বান জানান।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসার সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রাখছেন বলে জানান দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। প্রধানমন্ত্রী এ সময় হাসপাতালে ভিড় না করতে নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেন বলেও তিনি জানান।

বিকেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কনক কান্তি বড়ুয়া আরও বলেন, ‘আপনারা সকলকে জানিয়ে দেন, আমরা যেন নিরিবিলি তার চিকিৎসা করতে পারি। কেউ যেন ভিড় না করেন।’

ওবায়দুল কাদের সাড়া দিচ্ছেন কিনা- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ডাক দিলে তিনি মিটমিট করে তাকিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি ডাক দিলে বড় চোখ করে তাকিয়েছেন ওবায়দুল কাদের।’

‘মোহাম্মদ নাসিম যখন তাকে ডাকেন তখনও তিনি চোখ খুলে কথা বলার চেষ্টা করেন।’ এক প্রশ্নের জবাবে আলী আহসান বলেন, ‘তার বর্তমানে শারীরিক যে অবস্থা তাতে তাকে বিদেশে নেয়ার মতো পরিস্থিতি নেই। তবে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে যদি প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকেন, তাহলে আমরা অ্যালাও করতে পারি।’

‘বিদেশে নেয়ার বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর দফতর দেখছে’ বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এফএইচএস/এনডিএস/এমএআর/জেআইএম

টাইমলাইন  

আপনার মতামত লিখুন :