পদ্মা সেতু নিয়ে যা বললেন সুধীজনেরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৫৫ পিএম, ২৫ জুন ২০২২

প্রাকৃতিক প্রতিকূলতা, রাজনৈতিক বাদানুবাদ, মিথ্যা অভিযোগ, গুজবসহ নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন করা হলো আজ শনিবার (২৫ জুন)। উদ্বোধন উপলক্ষে শুধু পদ্মাপাড় নয়, সারাদেশে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।

রাজধানীসহ সারাদেশে শোভা পাচ্ছে ‘প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন’ জানিয়ে নানা রঙের ব্যানার, ফেস্টুন-বিলবোর্ড, আলোকসজ্জা করা হয়েছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভবনে। দলমত নির্বিশেষে সবাই এসব ব্যানার-ফেস্টুন-বিলবোর্ডে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন বার্তা জানিয়েছেন। দেশের বিভিন্ন স্থানে হচ্ছে আনন্দ শোভাযাত্রা।

স্বপ্নের এ সেতু শুধু দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলায় যাতায়াতে সুবিধা বয়ে আনবে না, জাতীয় অর্থনীতিতেও অবদান রাখবে এ সেতু। স্বপ্নের পদ্মা সেতু ঘিরে অর্থনৈতিক অঞ্চল (ইকোনমিক জোন), পর্যটন, ইকোপার্কের পরিকল্পনা হচ্ছে। এছাড়া হিমায়িত মৎস্য ও পাট শিল্পের নতুন সম্ভাবনা তৈরি হচ্ছে। পোশাকখাতসহ বিভিন্ন সেক্টরে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আসার অপেক্ষায়।

এ সেতু দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোল, মোংলা সমুদ্রবন্দর ও পায়রা স্থলবন্দরের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা আরও সহজ করবে। শিল্পোদ্যোক্তাদের কাছে গুরুত্ব বাড়াবে এসব বন্দর। এ সেতু রপ্তানি বাণিজ্যকে করবে আরও সহজ ও সাশ্রয়ী। পদ্মার বুকে নির্মিত স্বপ্নের সেতু জিডিপির প্রবৃদ্ধিতে ১ দশমিক ২৩ শতাংশ অবদান রাখবে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জিডিপি বাড়বে ২ দশমিক ৩ শতাংশ।

পদ্মা সেতু নিয়ে দেশের রাজনৈতিক-সামাজিক নেতারা যা বললেন

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, মানুষের আর্থসামাজিক মুক্তিতে অবদান রাখবে এই সেতু। অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জনে বড় অবদান রাখবে পদ্মা সেতু। স্বপ্নের এ সেতু দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের আর্থসামাজিক মুক্তিসহ প্রতিটি ক্ষেত্রের অবদান রাখবে।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থানে অভূতপূর্ব পরিবর্তন সৃষ্টি করেছে। পদ্মা সেতু সারা বিশ্বের কাছে সম্ভাবনা ও গর্বের বিষয়। এ সেতু গোটা জাতির অর্থনীতি ও খাদ্যে উন্নতি এবং উন্নত বাংলাদেশে রূপান্তরিত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর দূরদৃষ্টি সম্পন্ন সিদ্ধান্তের লক্ষ্য পূরণের মাইলফলক হিসেবে কাজ করবে।

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, এ সেতু হবে এমন কথা যারা বিশ্বাস করেননি, পদ্মা সেতু দেখে তারা বিশ্বাস করবেন। যারা বিশ্বাস করেননি আমরা তাদের অপমান করার চেষ্টা করি, এটা ঠিক নয়। মানুষ ভুল করে, তারাও ভুল করেছেন। তাই বলে তারা পৃথিবীতে থাকার অধিকার হারিয়ে ফেলছেন এটা ঠিক নয়। তবে আমাদের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী আয়োজনে কিছুটা ত্রুটি রয়েছে বলে মনে করি। এতো টাকা খরচ না করে বন্যাকবলিত সিলেট, নেত্রকোনা, হবিগঞ্জের মতো জায়গায় দিলে ভালো হতো। আওয়ামী লীগ কর্মীরা সেখানে আরও কাজ করলে ভালো হতো।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, আজ খালেদা জিয়াকে জামিন দিয়ে দাওয়াত দেওয়ার দরকার ছিল। আপনারা ভালো কাজ করেছেন উনি (খালেদা জিয়া) আসুন, দেখুন। এ সময় তিনি পদ্মা সেতু পারাপারে সব ধরনের অ্যাম্বুলেন্সের টোল ফ্রি করার আহ্বান জানান। একইসঙ্গে বিদেশিদের দ্বিগুণ টোল আদায়ের কথাও বলেও তিনি।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, সততা ও আত্মবিশ্বাসের প্রতীক স্বপ্নের পদ্মা সেতু। অনেকে অবিশ্বাস করেছেন, ভেবেছেন পদ্মা সেতু হবে না। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী তা প্রমাণ করলেন। সারা বিশ্বের মানচিত্রে দেখিয়ে দিয়েছেন যে বাংলাদেশকে আর কেউ দাবিয়ে রাখতে পারবে না, তারই প্রতীক পদ্মা সেতু।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, পুরো জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছে পদ্মা সেতু। এ সেতু যে উৎসব আনন্দ এবং গৌরবের তা আজ জাতির মধ্যে প্রকাশ পাচ্ছে। সেতু দিয়ে আসা মানুষ, বাস ও ট্রাকগুলো দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মধ্য দিয়ে প্রবেশ করবে, এজন্য ডিএসসিসির পক্ষে সবাইকে স্বাগতম।

আওয়ামী লীগের স্থায়ী কমিটির সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেন, সব ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে নিজস্ব অর্থায়নে স্বপ্নের পদ্মা সেতু চালু হচ্ছে আজ। জাতির পিতার ইচ্ছা ছিল পদ্মা ও অন্যান্য নদীতে ব্রিজ নির্মাণ করা, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি করা। ষড়যন্ত্রকারীরা তা হতে দেয়নি, তাকে শহীদ করা হলো। তবে বঙ্গবন্ধুকন্যা জাতির পিতার সে স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিয়েছেন। আজ জাতির পিতা বেঁচে থাকলে সবচেয়ে বেশি খুশি হতেন।

পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, বাংলাদেশের নবযাত্রার প্রতীক ও আগামী বাংলাদেশের আইকন হলো স্বপ্নের পদ্মা সেতু। আইফেল টাওয়ার যেমন ফ্রান্সের প্রতীক, স্ট্যাচু অব লিবার্টি নিউইয়র্কের প্রতীক, আগামী বাংলাদেশের আইকন আমাদের পদ্মা সেতু। এ সেতু জাতিগতভাবে আমাদের আত্মবিশ্বাসকে বৃদ্ধি করবে, জাতিগত ঐক্য এবং দেশ প্রেমকে সমন্বিত করবে।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, দেশে-বিদেশে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। বিশ্বব্যাংক দুর্নীতির অভিযোগে সেতুর অর্থায়ন বন্ধ করেছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ়তায় আজ এই সেতু বাস্তবায়িত হয়েছে। বাঙালির সবচেয়ে শক্তিশালী সেতু পদ্মা সেতু, এটি বাঙালি জাতিকে আরও এগিয়ে নেবে।

নির্মাতা, অভিনেত্রী ও গায়িকা মেহের আফরোজ শাওন বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি, পদ্মা সেতু দেখছি। অসাধারণ একটি অনুভূতি বাঙালি জাতির জন্য। বাঙালি জাতি হার না মানা জাতি, প্রধানমন্ত্রী তা বাস্তবায়ন করেছেন। জাতি হিসেবে আমাদের মনোবল যে দৃঢ় তা আবারও প্রমাণিত হলো।

ইএআর/কেএসআর/এএসএম

টাইমলাইন  

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]