মিন্নির স্বীকারোক্তি প্রত্যাহারের আবেদন আদালতে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি বরগুনা
প্রকাশিত: ১২:২২ পিএম, ৩১ জুলাই ২০১৯

রিফাত হত্যা মামলায় প্রধান সাক্ষী থেকে আসামি বনে যাওয়া আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রত্যাহারের আবেদন আদালতে এসে পৌঁছেছে। বুধবার সকালে কারা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আবেদনটি বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পৌঁছায়।

এ বিষয়ে মিন্নির আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, মিন্নি আদালতে দেয়া তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রত্যাহারের শুনানির জন্য আবেদন করেছেন। আবেদনটি আজ সকালে কারা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আদালতে পৌঁছেছে। কিন্তু মামলার মূল নথি জেলা ও দায়রা জজ আদালতে থাকায় এ বিষয়ে আজ কোনো শুনানি হয়নি।

এদিকে রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শেষে জেলহাজতে থাকা ১৪ অভিযুক্তকে আদালতে হাজির করেছে পুলিশ। মামলার দিন ধার্য থাকায় বুধবার সকালে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. সিরাজুল ইসলাম গাজীর আদালতে তাদের হাজির করা হয়। পরে আদালতে কার্যক্রম শেষে সব অভিযুক্তকে আবার জেলহাজতে পাঠানো হয়।

এ বিষয়ে মামলার অপর আইনজীবী গোলামা মোস্তফা কিসলু বলেন, মামলার দিন ধার্য থাকায় রিফাত হত্যাকাণ্ডে গ্রেফতার ১৫ অভিযুক্তের মধ্যে ১৪ অভিযুক্তকে আজ সকালে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ মামলায় রাতুল নামের এক অভিযুক্ত কিশোর হওয়ায় সে বরিশালের একটি শিশু কিশোর সংশোধনাগারে রয়েছে। তাকে আদালতে হাজির করা হয়নি।

তিনি আরও বলেন, এ মামলায় সন্দেহভাজন গ্রেফতার হয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়া শেষে জেলহাজতে থাকা সাইমুন ও শ্রাবণের জামিন আবেদন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন তাদের আইনজীবীরা।

borguna

এছাড়া সাইমুনের আগামী ৭ আগস্ট থেকে অনার্স পরীক্ষা শুরু হবে। তিনি যেন কারা কর্তৃপক্ষের মধ্যে পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেন, এজন্য আদালতে একটি আবেদন করা হয়। পরে আদালতে এ আবেদনটি মঞ্জুর করেন। আগামী ১৪ আগস্ট এ মামলার পরবর্তী দিন ধার্য করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রধান অভিযুক্ত নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। এছাড়া এখন পর্যন্ত এ মামলার এজাহারভুক্ত সাত আসামি এবং হত্যায় জড়িত সন্দেহে আরও আটজন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতার এই ১৫ জনের সবাই রিফাত হত্যাকাণ্ডে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এ মামলার এজাহারভুক্ত চারজন অভিযুক্ত এখনও পলাতক।

সাইফুল ইসলাম মিরাজ/এফএ/জেআইএম

টাইমলাইন