রিফাতের হত্যাকারীদের পক্ষে কোনো আইনজীবীকে না দাঁড়ানোর আহ্বান

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৩:৩৩ পিএম, ২৮ জুন ২০১৯
ফাইল ছবি

রিফাত শরীফের হত্যাকারীদের পক্ষে আদালতে কোনো আইনজীবীকে না দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম।

তিনি বলেন, ‘বেশি টাকা নিয়ে আপনারা এ সন্ত্রাসীদের পক্ষে দাঁড়াবেন না। আপনারা বিবেক দিয়ে বিষয়টি বিবেচনা করবেন। শুধু টাকার জন্য খুনিদের পক্ষ কেন নেবেন? সন্ত্রাসীদের আইনি সহায়তা দেবেন না। তাদের পক্ষে দাঁড়াবেন না।’

রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে শুক্রবার বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন সাবেক এ মন্ত্রী। শহীদ জননী জাহানারা ইমামের ২৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

১৪ দলর মুখপাত্র বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাউকে খাতির করেন না। তিনি বিশ্বজিৎ ও নুসরাত হত্যাকাণ্ডের বিচার করেছেন। রিফাত ফরাজিকেও খাতির করবেন না। রিফাত ফরাজি দীর্ঘদিন ধরে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছে। তাই আমি অনুরোধ করব, কোনো আইনজীবী রিফাতের মতো সন্ত্রাসীদের আইনি সহায়তা দেবেন না। তাদের পক্ষে দাঁড়াবেন না।’

বরগুনার রিফাত শরীফের হত্যাকারীর রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক আশ্রয়দাতাদের গ্রেফতারের আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এ সদস্য আরও বলেন, ‘এ সব খুনিকে যারা আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছে তাদেরও গ্রেফতার করতে হবে। কারণ তাদের অশ্রয় না দিলে তারা এতবড় দুঃসাহস দেখাতে পারতো না। একটা যুববকে প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে হত্যা করার মতো সাহস তারা দেখায় কীভাবে?’

নাসিম বলেন, ‘শুধু খুনিদের গ্রেফতার করলেই হবে না। এরা রাজনৈতক আশ্রয়ে থেকে এসব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালায়। এদের স্থানীয় পুলিশও সহযোগিতা করে। এরা সন্ত্রাসী। তাদের কোনো দল নেই। এরা বিএনপি-জামায়াতের চেয়েও ভয়ঙ্কর।’

শহীদ জননী জাহানারা ইমাম সম্পর্কে নাসিম বলেন, ‘তিনি ছিলেন একজন মহিয়সী নারী। তিনি ক্যান্সার নিয়ে ঘাতকদের বিচারের দাবিতে আন্দোলন করেছেন। তিনি শেষ পর্যন্ত রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা নিয়ে মৃত্যুবরণ করেন। এ মামলা হয়েছিল বিএনপির আমলে। এ জন্য খালেদা জিয়ার বিচার হওয়া উচিত।’

সংগঠনের নেত্রী দিনাত জাহান মুন্নির সভাপতিত্বে সভায় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য মোজাফ্ফর হোসেন পল্টু, সাবেক খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দিলীপ রায়, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা প্রমুখ বক্তব্য দেন।

এফএইচএস/এনডিএস/এমকেএইচ

টাইমলাইন  

আপনার মতামত লিখুন :