পাক-ভারতের আর কোনো সামরিক পদক্ষেপ দেখতে চায় না যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:৪৫ পিএম, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

পারমাণবিক অস্ত্রসমৃদ্ধ পাকিস্তান ও ভারতকে আর কোনো ধরনের সামরিক পদক্ষেপ না নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন প্রতিরক্ষা সদর দফতর পেন্টাগন থেকে দেয়া এক বিবৃতি এমন আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সহকারী প্রতিরক্ষামন্ত্রী প্যাট্রিক শাহনাহান।

পেন্টগানের ওই বিবৃতিতে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, তিনি পাক-ভারত উত্তেজনাকর পরিস্থিতি নিয়ে দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা উপদ্ষ্টো জন বোল্টন, জয়েন্ট চীফ অব স্টাফসহ ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন।

>>> পাক-ভারত উত্তেজনার লাইভ আপডেট

মার্কিন প্রতিরক্ষা সদর দফতরের ওই বিবৃতিতে আরও জানানো হয়েছে, ‘ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনার ব্যাপারে কাজ করছেন। তিনি দেশ দুটিকে নতুন করে কোনো সামরিক পদক্ষেপ যাতে না নেয়া হয় সে বিষয়ে অবহিত করেছেন।

জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলছেন, ‘আর যদি কোনো সামরিক পদক্ষেপ নেয়া হয় তাহলে দুই দেশ, তাদের প্রতিবেশী ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জন্য তা অগ্রহণযোগ্য। এটা কোনো ভাবেই হতে দেয়া যায় না।’

আরও পড়ুন>> পাকিস্তানকে সমর্থন দেবে তুরস্ক

যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত আসাদ মাজিদ খান বলেছেন, ‘ইসলমাবাদ ট্রাম্প প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা দেকতে চায়। আমরা যুক্তরাষ্ট্রের আরও সক্রিয় ভূমিকা আশা করি।

বুধবার মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ভারত-পাকিস্তানকে সংযত হওয়ার আহ্বান জানান। তিনি দুই দেশকে আলোচনার টেবিলে বসে সমঝোতা করার পরামর্শও দেন।

আরও পড়ুন>> ভারতের যুদ্ধ প্রস্তুতি, সীমান্তে ১৪ হাজার বাঙ্কার নির্মাণ

মঙ্গলবার পাকিস্তানে ঢুকে বিমান হামলা চালায় ভারত। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় পাকিস্তানিভিত্তিক সশস্ত্র জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ আত্মঘাতী বোমান হামলার ‘প্রতিশোধে’ ভারতের এমন হামলা। ১৯৭১ সালের পর প্রথমবারের মতো পাকিস্তান সীমান্তে ঢুকে হামলা চালিয়েছে তারা।

ভারতের হামলার পর পাকিস্তান পাল্টা প্রতিরোধের অংশ হিসেবে কাশ্মীরে হামলা চালিয়ে ভারতের দুটি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করেছে পাকিস্তান। তারা ভারতের একজন পাইলটকেও আটক করেছে। পাল্টাপাল্টি হামলার কারণে দুই দেশের মধ্যে চলমান উত্তেজনা এখন চরমে।

এসএ/এমএস

টাইমলাইন