১৮ মিনিটেও পুলিশ পৌঁছাতে পারল না, দুঃখজনক : হাছান

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:১৩ পিএম, ১৬ মার্চ ২০১৯
নিউজিল্যান্ডের মসজিদে হামলাকারী ব্রেন্টন ট্যারেন্ট।

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, নিউজিল্যান্ডে ১৮ মিনিট ধরে পাখি শিকারের মতো মানুষ হত্যার লাইভ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেয়া হলেও এই সময়ের মধ্যে পুলিশ সেখানে পৌঁছাতে পারল না! এটা অত্যন্ত হৃদয়বিদারক ও দুঃখজনক।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর গুলিস্তানে মহানগর নাট্যমঞ্চ হলে ‘ঢাকা মানবাধিকার কনভেনশন-২০১৯’ এ যোগদান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে শুক্রবার গুলি চালান ব্রেন্টন ট্যারেন্ট নামে এক অস্ট্রেলীয়। এতে প্রাণ হারিয়েছেন ৪৯ জন। আহত হন ৪৮ জন। এমন নৃশংস হামলার দ্রুত ও পূর্ণ তদন্ত দাবি করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এই নৃশংস হামলার নিন্দা জানানোর ভাষা নেই। আমরা নিউজিল্যান্ডকে শান্তির দেশ হিসেবে জানতাম। সেখানে মসজিদের মধ্যে প্রার্থনারত নিরীহ মানুষের ওপর নির্বিচারে গুলি চালিয়ে হত্যার ঘটনা অত্যন্ত হৃদয়বিদারক ও নিন্দনীয়।’

মন্ত্রী বলেন, ‘সবচেয়ে আশ্চর্যজনক যে, হামলাকারী আগে থেকেই হামলার পরিকল্পনা ও তার ঘৃণা-বিদ্বেষ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করেছিল। এমনকি হামলার শুরু থেকে হামলা পরিচালনার ঘটনাও সে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লাইভ দিয়েছিল। ১৮ মিনিট ধরে পাখি শিকারের মতো মানুষ হত্যার লাইভ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেয়া হলো। একটি মসজিদের পর আরেকটি মসজিদে হামলা হলো, কিন্তু পুলিশ সেখানে পৌঁছাতে পারল না, এটি অত্যন্ত হৃদয়বিদারক ও দুঃখজনক। আমাদের দেশেও এমন উপুর্যপরি হামলা করা সম্ভব নয় বলে আমি মনে করি।’

‘যানজটের ঢাকা শহরেও কোথাও আগুন লাগলে পাঁচ মিনিটের মধ্যে সেখানে ফায়ার ব্রিগেড পৌঁছে যায়, আর যানজটহীন নিউজিল্যান্ডে হামলাস্থলে পুলিশ পৌঁছাতে পারল না, এটি দ্রুত ও পূর্ণ তদন্তের বিষয়’ বলেন হাছান মাহমুদ।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী জঙ্গিদমনে ইতোমধ্যে যথেষ্ট দক্ষতার প্রমাণ করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা আজ জঙ্গিদমনে উৎকৃষ্ট উদাহরণ। আমাদের অভিজ্ঞতা অন্যদের কাজে লাগতে পারে।’

জাতীয় ক্রিকেট দলের নিরাপত্তায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের ক্রিকেট দলের সদস্যদের প্রাণরক্ষায় সৃষ্টিকর্তার কাছে পরম কৃতজ্ঞতা জানাই। কিন্তু এটি অত্যন্ত চিন্তার বিষয় যে, তারা পাঁচ মিনিট আগে সেখানে পৌঁছালে কী ঘটনা ঘটতো! যেখানে আমাদের জাতীয় ক্রিকেট দল তাদের জাতীয় দলের সঙ্গে খেলতে গেছে, সেখানে তাদের পর্যাপ্ত নিরাপত্তাব্যবস্থা নেই।’

আরএমএম/বিএ/জেআইএম

টাইমলাইন  

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]