ইরাক থেকে সৈন্য সরিয়ে নিচ্ছে জার্মানি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:২০ পিএম, ০৭ জানুয়ারি ২০২০

নিরাপত্তার কারণে ইরাক থেকে কিছু সৈন্যকে প্রতিবেশী দেশগুলোতে সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জার্মানি। মার্কিন ড্রোন হামলায় ইরানের সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলেইমানি নিহত হওয়ার পর দেশটিতে উত্তেজনা তৈরি হওয়ায় সৈন্য সরিয়ে নেয়ার এই সিদ্ধান্ত সোমবার দেশটির আইনপ্রণেতাদের জানিয়েছে ক্ষমতাসীন জার্মান সরকার।

মঙ্গলবার ব্রিটিশ বার্তাসংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে ইরাক থেকে জার্মানির সৈন্য সরিয়ে নেয়ার এই খবর দেয়া হয়েছে। এক চিঠিতে জার্মান সরকার দেশটির সংসদকে জানিয়েছে, ইরাকি নিরাপত্তাবাহিনীর প্রশিক্ষণের জন্য বাগদাদে নিয়োজিত জার্মানির ১২০ সৈন্যের মধ্যে প্রায় ৩০ জনকে জর্ডান এবং কুয়েতে পুনর্মোতায়েন করা হবে।

গত ৩ জানুয়ারি ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে মার্কিন ড্রোন হামলায় ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর অভিজাত শাখা কুদস ফোর্সের প্রধান কাসেম সোলেইমানি নিহত হন। এই হত্যাকাণ্ডের পর মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়েছে।

রোববার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-সহ অন্যান্য দেশের সৈন্যদের বরখাস্ত করার পক্ষে একটি প্রস্তাব ইরাকের পার্লামেন্টে পাস হয়েছে। তবে দেশটিতে নিযুক্ত মার্কিন সৈন্যদের এখনই সেখান থেকে প্রত্যাহার করে নেয়া হবে না বলে জানিয়েছে পেন্টাগন।

জার্মান সরকার বলছে, ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে মার্কিন সামরিক বাহিনীর সঙ্গে যৌথ লড়াইয়ের অংশ হিসেবে ইরাকে সৈন্য মোতায়েন করা হয়েছিল। বাগদাদ এবং তাজি শহরে নিয়োজিত ৩০ জার্মান সৈন্যকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হবে। জার্মানির ১২০ সৈন্যের মধ্যে ৯০ জন ইরাকের উত্তরাঞ্চলের কুর্দি অধ্যুষিত এলাকায় মোতায়েন রয়েছে।

তবে ইরাকি সৈন্যদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু হলে সরিয়ে নেয়া জার্মান সৈন্যদের আবারও সেখানে পাঠানো হবে বলে চিঠিতে জানিয়েছে জার্মান সরকার। জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশটির সরকারি সম্প্রচারমাধ্যম জেডডিএফকে বলেছেন, ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের পুনরুত্থানের আশঙ্কায় বিদেশি সৈন্যদের দ্রুত ইরাক ছাড়া উচিত। কিন্তু কোনও পক্ষ সেটি চায় না।

এসআইএস/জেআইএম

টাইমলাইন  

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]