হামলার আগে ইরাককে জানিয়েছিল ইরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:১৩ পিএম, ০৮ জানুয়ারি ২০২০

সোলেইমানি হত্যার প্রতিশোধে ইরাকে অবস্থিত দুটি মার্কিন ঘাঁটিতে ইরান যে ২২টি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাবে তা ইরাকের সরকার প্রধানকে জানানো হয়েছিল। ইরাকের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধানমন্ত্রী আদেল আবদুল মাহদির মুখপাত্র বুধবার ভোরের ওই হামলার পর এমন তথ্য জানিয়েছেন। খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইরাকের প্রধানমন্ত্রীর মুখপাত্র ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর বলেন, ‘শহীদ কাসেম সোলেইমানির হত্যার পর তার বদলা নিতে ইসলামিক রিপাবলিক অব ইরান যে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করবে বা করেছে তা বুধবার মধ্যরাতের ক্ষাণিক পরে মৌখিক বার্তায় আমাদের জানানো হয়েছিল।’

ইরাকের প্রধানমন্ত্রীর মুখপাত্র তার বিবৃতিতে বলেন, ‘ইরাকে শুধু যেখানে মার্কিন সেনা উপস্থিতি রয়েছে সেখানেই হামলা করা হবে বলে প্রধানমন্ত্রী আদেল আবদুল মাহদিকে আগেই নিশ্চিত করেছিল তেহরান সরকার। তবে ইরাকের ঠিক কোথায় হামলা করা হবে সে সম্পর্কে কিছু জানানো হয়নি।’

যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বিমান ঘাঁটিতে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর প্রধানমন্ত্রী আদেল আবদুল মাহদিকে ফোন করে ট্রাম্প প্রশাসন বলেও জানিয়েছেন ইরাক সরকারের ওই মুখপাত্র। তিনি আরও জানিয়েছেন, বুধবার মধ্যরাতের ওই হামলায় মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট কিংবা ইরাকের নিরাপত্তা বাহিনীর কেউ হতাহত হয়নি।

ইরানের কুদস ফোর্সের কমান্ডার সোলেইমানি নিহত হওয়ার প্রেক্ষিতে প্রতিশোধের এই হামলা চালিয়েছে ইরান। তারা বলছে, সোলেইমানি হত্যার বদলা নিতেই এ হামলা। হামলার পর ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, তারা কোনো যুদ্ধ চায় না। যুক্তরাষ্ট্র হামলা করলে যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে আঘাত করা হবে বলে হুমকি দিয়েছে আইআরজিসি।

ইরান বলছে, ইরাকে যুক্তরাষ্ট্রের দুটি সামরিক বিমান ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় অন্তত ৮০ জন ‘মার্কিন সন্ত্রাসী’ নিহত হয়েছে। স্থানীয় সময় ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ইরাকের পশ্চিমাঞ্চলের আইন আল আসাদ এবং কুর্দিস্তানের ইরবিলের মার্কিন ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে ইরান।

এদিকে মার্কিন এক কর্মকর্তা দেশটির সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে বলেন, হামলার পর তাদের কাছে যাওয়া প্রাথমিক প্রতিবেদন অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রের কারও হতাহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি। তবে ইরানের প্রায় দুই ডজন ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা নিরূপণ করার কাজ চলছে।

ইরাকের নিরাপত্তা বাহিনীর এক যৌথ কমান্ড বিবৃতিতে জানিয়েছে, সব ক্ষেপণাস্ত্র মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটের ঘাঁটিতে আঘাত হেনেছে। ভোরের ওই হামলায় তাদের কোনো সৈন্য হতাহত হয়নি। হামলা শুরু হয় স্থানীয় সময় রাত পৌনে ২টায়। হামলা চলে রাত পৌনে ৩টা পর্যন্ত।

ট্রাম্প এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘সব ঠিক আছে, ইরাকে দুটি বিমান ঘাঁটিতে ইরান থেকে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়েছে। এখন ক্ষয়ক্ষতি এবং হতাহতের তথ্য মূল্যায়ন করা হচ্ছে, যা হয়েছে, ভালো হয়েছে! আমাদের কাছে সবচেয়ে ক্ষমতাধর এবং সুসজ্জিত সামরিক বাহিনী রয়েছে। বিশ্বের যেকোনো স্থানে তারা রয়েছে।’

এসএ/পিআর

টাইমলাইন  

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]