নারী ভোটকেন্দ্রে পুরুষের ভিড়!

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক নারায়ণগঞ্জ থেকে
প্রকাশিত: ১২:৩৫ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২২

বহুল আলোচিত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে। রোববার (১৬ জানুয়ারি) সকাল ৮টায় শুরু হওয়া এ ভোট চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ইতোমধ্যে ভোট দিয়েছেন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার।

ভোটগ্রহণের শুরু থেকেই বিভিন্ন কেন্দ্রে নারীদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়। এছাড়া সিদ্ধিরগঞ্জের দুটি নারী ভোটকেন্দ্রে পুরুষদের অতিরিক্ত ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ভিড় সামলাতে পুলিশ একপ্রকার হিমশিম খাচ্ছে।

সকাল থেকে মিজমিজি পাইনাদী রেকমত আলী উচ্চ বিদ্যালয় নারী ভোটকেন্দ্রে দেখা যায়, কেন্দ্রের বাইরে থেকে লাইন দাঁড়িয়ে রয়েছেন নারীরা। ভিড় ঠেলে একে একে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দিচ্ছেন নিরাপত্তাকর্মীরা। এখানে পুরুষরা কেন্দ্রের বাইরে ভিড় করছেন। জটলা করেও থাকতে দেখা গেছে তাদের। ভিড় কমাতে কেন্দ্রে দায়িত্বরত পুলিশ একাধিকবার সতর্ক করার পরও পুরুষরা সাময়িকভাবে সরে গেলেও আবারও ভিড় করছেন।

jagonews24

আরও দেখা যায়, মোবাইল টিম, স্ট্রাইকিং ফোর্স ও বিজিবির টহলরত গাড়ি এলেই হুমড়ি খেয়ে দ্রুত স্থান ত্যাগ করছেন কেন্দ্রের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা পুরুষরা। কেন্দ্রের সামনে কয়েকজন দাঁড়িয়ে ছিলেন কয়েকজন যুবক। তাদের জিজ্ঞাসা করলে তারা বলেন, বাসা থেকে নারীদের নিয়ে তারা কেন্দ্রে এসেছেন।

এদিকে বেশ কয়েকজন নারী জাগো নিউজকে অভিযোগ করে বলেন, এই সেন্টারটি নারীদের। তবে বাইরে পুরুষদের অনেক ভিড়। তাদের ভিড়ের ঠেলায় আমাদের কেন্দ্রে যেতে সমস্যা হচ্ছে।

কেন্দ্রে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল আজিজ জাগো নিউজকে বলেন, কেন্দ্রটিতে সকাল থেকে সুশৃংখলভাবে সববয়সী নারী লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দিচ্ছেন। কেন্দ্রের বাইরে পুরুষদের ভিড় কমাতে আমাদের দায়িত্বরত পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা কাজ করছেন।

jagonews24

এই কেন্দ্রে ভোট দিতে আসা সত্তরোর্ধ্ব রাফেজা বেগম জাগো নিউজকে বলেন, জীবনের প্রথম যন্ত্রে ভোট দিলাম। খুব ভালো লেগেছে ভোট দিতে। বোতাম টিপ দিয়েই ভোট দিতে পারছি।

সুমাইয়া তাইয়ুম সিমু নামের এক তরুণী প্রথমবারের মতো ভোট দিতে এসেছেন। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, আমাদের বাসার চারজন নারী একসঙ্গে এই কেন্দ্রে ভোট দিতে এসেছি। প্রায় ৪০ মিনিট লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে সিরিয়াল পেয়েছি। জীবনের প্রথম ইভিএমে ভোট দিতে পেরে আমি খুশি।

টিটি/বিএ/এএসএম

টাইমলাইন  

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]