কাশ্মীর নিয়ে পাক পার্লামেন্টে তুমুল হট্টগোল, অধিবেশন স্থগিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:২১ পিএম, ০৬ আগস্ট ২০১৯

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর ইস্যুতে শুরু হওয়া পাকিস্তানের পার্লামেন্টের অধিবেশন তুমুল হই-হট্টগোলে শেষ হয়েছে। মঙ্গলবার পাকিস্তানের জাতীয় বিধানসভার বিরোধী দলের সদস্যরা বিশৃঙ্খলা তৈরি করায় বিধানসভার স্পিকার আসাদ কায়সার অধিবেশন মূলতবি ঘোষণা করেন।

ভারতের সংবিধানে দেয়া জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা সংক্রান্ত অনুচ্ছেদ ৩৭০ রাজ্যসভায় বাতিল হয়ে যাওয়ার পর পার্লামেন্টের উচ্চ ও নিম্নকক্ষের যৌথ অধিবেশন আহ্বান করেছিলেন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি। কাশ্মীর ইস্যুতে ভবিষ্যতে ভারতের পদক্ষেপ কী হবে, সেবিষয়ে আলোচনার জন্য অধিবেশন ডেকেছিলেন তিনি।

কিন্তু অধিবেশন শুরু হওয়ার পরপরই সংসদ সদস্যরা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। তারা বলেন, পার্লামেন্টের যে আলোচ্যসূচি নির্ধারণ করা হয়েছে; তাতে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদের কথা নির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়নি। এ নিয়ে ক্ষোভ দেখাতে থাকেন পাক পার্লামেন্টের বিরোধী দলের সদস্যরা।

আরও পড়ুন : কাশ্মীরের সব মসজিদের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে বিজেপি সরকার?

সোমবার পাকিস্তানের পার্লামেন্টের সচিব যৌথ এই অধিবেশনের আলোচ্যসূচি প্রকাশ করেন। এতে তিনি বলেন, আজাদ কাশ্মীরে বেসামরিক নাগরিকদের ওপর ভারতীয় বাহিনীর ক্লাস্টার বোমা ব্যবহার ও উসকানিমূলক গোলা বর্ষণের ব্যাপারে পার্লামেন্টে আলোচনা হবে। এছাড়া ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরে ভারতের নৃশংসতা এবং সাম্প্রতিক অতিরিক্ত সৈন্য সমাবেশের ব্যাপারেও আলোচনা হতে পারে।

পার্লামেন্টের প্রস্তাবনায় অনুচ্ছেদ ৩৭০ অন্তর্ভূক্ত করা হবে বলে স্পিকার কায়সার বিরোধী দলীয় সংসদ সদস্যদের আশ্বস্ত করলেও তারা বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দেন এবং বিক্ষোভ করতে থাকেন। কিন্তু সংসদ সদস্যরা স্পিকারের আশ্বাসের পরও বিক্ষোভ করতে থাকায় সংসদের অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করেন।

পার্লামেন্টের বাইরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের তথ্য বিষয়ক বিশেষ সহকারী ফিরদাউস আশিক আওয়ান বলেন, আমরা বিরোধীদের ইচ্ছাকে সম্মান করি এবং কাশ্মীরিদের অধিকারের সমর্থনে আনা প্রস্তাব নিয়ে কোনো ধরনের বিতর্ক তৈরি করা উচিত নয়।

আরও পড়ুন : কাশ্মীরের জন্য মরবো : অমিত শাহ

তিনি বলেন, কাশ্মীরিরা তাদের এই দুর্দিনে পাকিস্তানের দিকে চেয়ে আছে। আমরা তাদের জানাতে চাই যে, তারা একা নয়। তাদের স্বার্থের জন্য পাকিস্তান সর্বদা কূটনৈতিক সমর্থন অব্যাহত রাখবে। প্রাসঙ্গিক সব ফোরামেই এই বিষয়টি তুলে ধরবে পাকিস্তান।

‘আমরা এই বিষয়টি জাতিসংঘের কাছে তুলে ধরার জন্য মুখিয়ে আছি। জাতিসংঘের কনভেনশন ভারত লঙ্ঘন করায় আমরা এ ব্যাপারে তদন্তের আহ্বান জানাই।’

এর আগে সোমবার ভারতের এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের একটি প্রস্তাব রাজ্যসভায় উপস্থাপন করেন। রাষ্ট্রপতির সম্মতিতে আনা এই প্রস্তাবে পার্লামেন্টের ২৩৯ সদস্যের মধ্যে ১২৫ জন পক্ষে ভোট দেন; বিরোধিতা করে ভোট দেন ৬১ জন।

সূত্র : ডন।

এসআইএস/এমএস

টাইমলাইন