বঙ্গমাতা গোল্ডকাপের ফাইনালে ফণী আতঙ্ক

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৫:১৬ পিএম, ০৩ মে ২০১৯

ম্যাচ শুরুর ঠিক দুই ঘন্টা আগে আকাশ কালো করে মুষলধারে বৃষ্টি। সঙ্গে বাতাস। চারিদিকে আশঙ্কা-বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ নারী আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপের ফাইনাল হবে তো?

বৃষ্টি আর বাতাস বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। রোদ না উঠলেও আকাশ পরিষ্কার। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের মাঠের কয়েকটি স্থানে জমে আছে অল্প পানি। ফাইনালের রেফারি এবং সহকারি রেফারিরা ইতিমধ্যে মাঠ পরিদর্শন করেছেন। তারপরও ফণীর আতঙ্ক-ফাইনাল হবে তো?

বৃষ্টি আর বাতাস যেভাবে শুরু হয়েছিল, তাতে ধরেই নেয়া হয়েছিল এই ফাইনাল মাঠে গড়ানো দুষ্কর। কারণ, এটা স্বাভাবিক বৃষ্টি নয়-ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাব। শক্তিশালী ফণী বেশ কয়েকদিন ধরে শক্তি সঞ্চয় করে শুক্রবার সকালে আঘাত হেনেছে ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ ওড়িশায়।

আবহাওয়া দফতরের তথ্য অনুযায়ী, সন্ধ্যা ৬ টায় ফণী আঘাত হানবে বাংলাদেেশে। তবে তার আগেই এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি জেলায়। দেশের কয়েকটি জেলায় বৃষ্টি শুরু হয়েছে। বজ্রপাতেও মারা গেছেন বেশ কয়েকজন মানুষ।

ফাইনালের নির্ধারিত সময় সন্ধ্যা ৬ টা। তার ঘন্টাখানেক আগের পরিবেশটা বলছে, বৃষ্টি আর না হলে ফাইনালটা হবে। বাংলাদেশ ও লাওসের মধ্যে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচটি দেখতে ইতিমধ্যেই গ্যালারিতে দর্শক জমতে শুরু করছে। ফাইনালে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের।

তবে আবহাওয়া ভালো থাকলে শুক্রবার ছুটির দিনে এতক্ষণে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের গ্যালারির বেশিরভাগ জায়গায় ভরে যেত দর্শকে। দূযোগপূর্ণ আবহাওয়ায় অনেকেই ছুটির দিনটা ঘরেই কাটাবেন। প্রতিকূল আবহাওয়া ঠেলে হয়তো খেলা দেখতে স্টেডিয়ামে আসতে চাইবেন না অনেকে।

ফাইনালটি ভালোয় ভালোয় শেষ হলে তো কথাই নেই। তবে যদি দুযোর্গপূর্ণ আবহাওয়াও শেষ পর্যন্ত ফাইনালে ব্যাঘাত ঘটায় কিংবা পন্ডই করে দেয়, তাহলে কী হবে? তা নিয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। আয়োজকরা আশা করছেন, ফাইনালটি ভালোয় ভালোয়ই শেষ হবে।

আরআই/এমএমআর/এমএস

টাইমলাইন