ফণী এখন গভীর নিম্নচাপ, রোববারও হতে পারে ভারী বর্ষণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:৪৩ পিএম, ০৪ মে ২০১৯

ফণী বর্তমানে বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড় আকারে নেই। এটি এখন গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। বিপদ ও হুঁশিয়ারি সংকেতের পরিবর্তে দেশের চারটি সমুদ্রবন্দরকে (মোংলা, পায়রা, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার) ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতর।

আবহাওয়া অধিদফতর বলছে, স্থানীয় সতর্কতা সংকেতে তারা কাউকে আশ্রয়কেন্দ্রে থাকতে বলেন না। তবে অমাবস্যার কারণে দেশের উপকূলীয় অঞ্চলে বায়ুচাপের তারতম্যের আধিক্যতা বিরাজ করছে। সে কারণে উপকূলীয় জেলাগুলোয় (চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, ভোলা, হাতিয়া, সন্দ্বীপ, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলো) ২ থেকে ৪ ফুট উচ্চতায় বায়ুতাড়িত জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।

উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সমুদ্রবন্দরে যেসব মাছ ধরার ট্রলার আছে, তাদের এখনও নিরাপদ আশ্রয়ে থাকার পরামর্শ দিয়েছে অধিদফতর।

শনিবার (৪ মে) দুপুর ১টার দিকে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতরের উপ-পরিচালক আয়েশা খাতুন বলেন, ‘আজকে সকাল থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত দেশের অনেক স্থানে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টিপাত হয়েছে। অনেক স্থানে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হয়েছে। আমাদের পূর্বাভাস হচ্ছে, এখনও গভীর নিম্নচাপটির প্রভাবে দেশের অনেক স্থানে বৃষ্টি হতে পারে ঝড়ো হাওয়াসহ, যার গতিবেগ থাকতে পারে ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার।’

‘আমাদের যে পূর্বাভাস আছে, আজকে যে ধরনের বৃষ্টিপাত হচ্ছে, সেটি অব্যাহত থাকবে। আগামীকালও (রোববার) বৃষ্টিপাত হবে। তারপর ধীরে ধীরে এটা কমতে থাকবে।’

fani-nimnochap-1

‘ফরিদপুর ও ঢাকা অঞ্চল এবং এর আশপাশের এলাকায় ঘূর্ণিঝড় ফণী অবস্থান করছিল, সেটি আরও উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়েছে। ফণী দুর্বল হয়ে আজকে দুপুর ১২টায় গভীর নিম্নচাপ আকারে পাবনা, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ এবং এর আশপাশের এলাকায় অবস্থান করছে। এটি আরও উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হতে পারে,’- বলেন তিনি।

উপ-পরিচালক আয়েশা খাতুন বলেন, ‘এই গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে সারাদেশে ঝড়ো হাওয়াসহ ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হচ্ছে। সাগর এখনও উত্তাল আছে। মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে দেয়া ৭ নম্বর বিপদ সংকেত নামিয়ে ফেলতে বলেছি। তার পরিবর্তে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরকে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত নামিয়ে তার পরিবর্তে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরকে ৪ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেতের পরিবর্তে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। অর্থাৎ আমাদের যে চারটা সমুদ্রবন্দর আছে, এই চারটা সমুদ্রবন্দরকে আমরা ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলেছি।’

বিপদ সংকেত নামিয়ে স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দিতে বলেছেন, আশ্রয় কেন্দ্রের লোকজন এখন বাড়িতে ফিরে যেতে পারবেন কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে আমাদের পরামর্শ হলো ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রে যারা আশ্রয় নিয়েছেন, স্থানীয় প্রশাসন এটার জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন। আমাদের কাজ হচ্ছে ঘূর্ণিঝড়ের অবস্থা জানানো। তবে স্থানীয় সতর্কতা সংকেতে আমরা কাউকে আশ্রয় কেন্দ্রে থাকতে বলি না।’

পিডি/জেডএ/জেআইএম

টাইমলাইন