অন্ধকার বাথরুমে ঢুকে বুঝলাম হোটেলের একটার পর একটা অংশ ভাঙছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৩৮ এএম, ০৩ মে ২০১৯

পূর্বাভাসের আগেই ঘণ্টায় ২০০ কিলোমিটার গতিবেগে ওড়িশা উপকূলে আছড়ে পড়েছে ‘অতি শক্তিশালী প্রবল ঘূর্ণিঝড়’ ফণী। এর আগে ভারতের আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাসে জানানো হয়েছিল, বিকাল ৩টার দিকে ওড়িশা উপকূলে আছড়ে পড়বে ফণী। কিন্তু তার আগেই সকাল সাড়ে নয়টার আগে ২০০ কিলোমিটার বেগে ওড়িশার গোপালপুর এবং পুরীতে আঘাত হানে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়।

পুরীতে ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে সব কিছু লণ্ডভণ্ড হয়ে যাচ্ছে। ঐতিহাসিক তীর্থস্থান ও সৈকত শহরে অবস্থান করছেন ভারতের কলকাতা ২৪য়ের প্রাক্তন চিত্র সাংবাদিক নারায়ণ চৌধুরীর।

তিনি জানিয়েছেন, সেখানকার পরিস্থিতি খুব খারাপ। তিনি বলেন, ঝড়ে উড়ে যাওয়ার আগে অন্ধকার বাথরুমে ঢুকে বুঝেছি হোটেলের একটার পর একটা অংশ ভাঙছে। আমাদের হোটেলের বিরাট বিরাট কাঁচের জানালাগুলো ভেঙে পড়ছে। কিছু দূরেই উত্তাল সাগর। মনে হয় সেই সাগরেই তলিয়ে যাবে পুরো শহর। সকালেই গার্ড ওয়াল ভেঙে গেছে। পুরী অসহায়। আগেই বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে পুরো শহর।

তিনি বলেন, ক্যামেরার ফোকাস করতে পাচ্ছি না। ঝাপসা না স্পষ্ট কী ছবি উঠছে সেটা দেখারও সময় নেই। শুধু ক্লিক করে যাচ্ছি। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ফণী ঢুকে পড়েছে ওড়িশার অপর সৈকত শহর গোপালপুরে। এর প্রভাবে ১৭৫-১৮০ কিলোমিটার গতি নিয়ে পুরীর উপর দিয়ে বয়ে চলেছে ঝড়।

লণ্ডভণ্ড হয়ে যাচ্ছে শহরের জনজীবন। তবে আগে থেকেই নিরাপদ দূরত্বে সবাইকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। তবুও প্রবল ক্ষয়-ক্ষতির আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।

টিটিএন/এমকেএইচ

টাইমলাইন