‘শরীরী ভাষাই বলছে হার মেনে নিয়েছেন মোদি’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:১০ পিএম, ১৮ মে ২০১৯

‘অভিনন্দন মোদিজি, অসাধারণ সংবাদ সম্মেলন! আশা করছি, পরেরবার অমিত শাহ আপনাকে কিছু প্রশ্নের হয়তো উত্তর দিতে দেবেন।’ শুক্রবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শেষ সংবাদ সম্মেলনের পর এভাবেই আক্রমণ করেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। রাহুলের পথে মোদিকে কটাক্ষ করতে পিছপা হননি অখিলেশ যাদব থেকে কাশ্মীরের নেতা ওমর আবদুল্লাও।

২০১৪ সালের ২৬ মে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন মোদি। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কাটিয়েছেন ১৮১৭ দিন। দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে প্রথমবার সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সাংবাদিকদের কোনো প্রশ্নেরই উত্তর দিলেন না তিনি।

দেশটির একটি দৈনিক বলছে, মোদির পাশে বসে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সভাপতি অমিত শাহ সব প্রশ্নের জবাব দিলেন। যা এক অর্থে নজিরবিহীন। সংবাদ সম্মেলন শেষ হওয়ার পর থেকেই মোদির কীর্তি নিয়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। মোদির নীরবতাকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি বিরোধী দলের নেতা-কর্মীরা।

রাহুল গান্ধীর পাশাপাশি সমাজবাদী পার্টি প্রধান অখিলেশ যাদবও শুক্রবার মোদির সমালোচনায় সরব হন। তিনি বলেন, তাদের সংবাদ সম্মেলন দেখে মনে হল, যেন রেডিওর পরিবর্তে টিভির পর্দায় একটি ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠান দেখলাম। সাংবাদিকদের সেখানে প্রশ্ন করার কোনো সুযোগই দেয়া হল না। তাদের অনুগত সৈনিকদের মতো মুখে কুলুপ এঁটে বসে থাকতে দেখা গেল।

মোদির এমন নীরবতার নিন্দা জানিয়েছেন লোকতান্ত্রিক জনতা দলের প্রধান শারদ যাদব। টুইটারে তিনি লিখেছেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে গত পাঁচ বছরে বিজেপির শাসনকালে মোদি একবারও সাংবাদিকদের মুখোমুখি হতে পারেননি। সবার মনেই এ প্রশ্ন উঠেছে। আর মোদির শরীরি ভাষাই বলছে, তিনি হার মেনে স্বীকার করে নিয়েছেন। তাই এটাই তার সরকার এবং পার্টির শেষ সংবাদ সম্মেলন।

কংগ্রেস নেতা আহমেদ প্যাটেল টুইট করেন, আমি এমন কোনো সংবাদ সম্মেলন দেখিনি যেখানে কেউ নিজেই নিজের প্রশ্নের উত্তর দেন। রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের গলাতেও একই সুর। ‘মোদির বডি ল্যাঙ্গুয়েজেই বলে দিচ্ছে তিনি পরাজয় মেনে নিয়েছেন।

খোঁচা দিতে ছাড়েননি জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী এবং ন্যাশনাল কনফারেন্স দলের নেতা ওমর আবদুল্লা। তার কথায়, সাংবাদিকদের ছদ্মবেশে থাকা বিজেপি কর্মীদের ধন্যবাদ জানাতে ভোলেননি অমিত শাহ।

এসআইএস/এমকেএইচ

টাইমলাইন  

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]