দিনাজপুরে চিকিৎসা নিচ্ছেন ১১ ডেঙ্গু রোগী, সবাই ঢাকায় আক্রান্ত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি দিনাজপুর
প্রকাশিত: ০৯:২৩ পিএম, ২৮ জুলাই ২০১৯

ঢাকায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ১১ জন রোগী দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। তারা সবাই ঢাকায় আক্রান্ত হলেও সেখানকার হাসাপাতালগুলোতে জায়গা না পেয়ে দিনাজপুরে এসে চিকিৎসা নিচ্ছেন- রোগাীদের সঙ্গে কথা বলে এমনটাই জানা গেছে।

এই ১১ জনের মধ্যে সতজনই ছাত্র। যারা ঢাকার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে লেখাপড়া করেন। বাকি চারজন কর্মজীবী।

এদিকে রোববার ডেঙ্গু রোগীদের জন্য হাসপাতালে আলাদা ওয়ার্ড খোলা হয়েছে। এর আগে এই হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল সাধারণ ওয়ার্ডে সাধারণ রোগীর সঙ্গে। রাখা হয়েছিল পাশাপাশি শয্যায়। তবে আলাদা ওয়ার্ড খোলা হলেও ডেঙ্গু রোগ শনাক্তকরণের জন্য কোনো যন্ত্রপাতি না থাকায় পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য রোগীদের বাড়তি অর্থ খরচ করতে হচ্ছে।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত কয়েক দিনে ১১ জন ডেঙ্গু রোগী এম আব্দুর মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এদের মধ্যে পাঁচজন সুস্থ্য হয়ে হাসাপাতাল ছেড়েছেন। বাকি সাতজন এখনও চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

চিকিৎসাধীনদের মধ্যে দিনাজপুর শহরের ফকিরপাড়ার মো. মোনাল হোসেনের ছেলে মো. পাপ্পু (১৭), বোচাগঞ্জ উপজেলার মোল্লাপাড়া গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে মাইনুল হাসান (২৪), বিরামপুর উপজেলার সাঙ্গপুর গ্রামের মহির উদ্দিনের ছেলে মো. জীবন (২০), চিরিরবন্দর উপজেলার দল্লা গ্রামের মো. মোস্তফার ছেলে রাব্বি ইসলাম (২৪) ও ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলার গেদুয়া গ্রামের তবিরুর রহমানের ছেলে স্কুলশিক্ষক মো. আনোয়ার হোসেন (৪১) পাঁচজনই কয়েকদিনের মধ্যে ঢাকায় গিয়েছেন।

হাসপাতালের পরিচালক ডা. আবু মো. খইরুল কবির জানান, ডেঙ্গু রোগী শনাক্তকরণের প্রয়োজনীয় যন্ত্র না থাকায় তার চাহিদাপত্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। দুই-এক দিনের মধ্যেই প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি পেলে এখানেই ডেঙ্গু রোগীর পরীক্ষা-নিরীক্ষা সম্ভব হবে।

এমদাদুল হক মিলন/এমবিআর/পিআর

টাইমলাইন  

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]