ফেনীতে ২৪ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফেনী
প্রকাশিত: ১২:৩৪ পিএম, ৩০ জুলাই ২০১৯

অবশেষে ফেনীতেও ডেঙ্গু রোগীর সন্ধান মিলেছে। সোমবার বিকেলে ফেনী সরকারি কলেজের হোস্টেলে থেকে আক্রন্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে কলেজের স্নাতক প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী মো. হাসান (২১)। তার বাড়ি কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার গুনবতি গ্রামে। তিনি ফেনী সরকারি কলেজে স্নাতক প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।

কলেজের হোস্টেলে থেকে গত সপ্তাহে জ্বরে আক্রান্ত হলে তিনি ফেনী জেনারেল হাসপাতালের ডা. জায়দেব পালের চিকিৎসা নেন। জ্বর না কমায় রোববার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানতে পারেন তিনি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জুলাই মাসের শুরুর দিক থেকে এ পর্যন্ত ২৫০ শয্যার ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ৬১ জন রোগী এডিস মশার জীবাণু নিয়ে ভর্তি হন। এদের মধ্যে ৩১ জন ডেঙ্গু রোগী সুস্থ হলেও উন্নত চিকিৎসার জন্য ৬ জনকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত এ হাসপাতালের পুরাতন ভবনের ৩ নম্বর ওয়ার্ডে ২৪ জন ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন।

সূত্র আরও জানায়, এখন পর্যন্ত ফেনীতে আক্রান্ত একজন রোগী পাওয়া গেছে। বাকিরা ঢাকা থেকে ডেঙ্গু জীবাণু নিয়ে ফেনী এসে চিকিৎসা নিয়েছেন।

এদিকে সরকার ডেঙ্গুর চিকিৎসা বিনামূল্যে ঘোষণা দিলেও ফেনী জেনারেল হাসপাতালে এ সেবা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেছেন রোগীরা। সেখানে চিকিৎসাধীন এমরান আমিন, অনিক চন্দ্র দাস ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, সকালে বিনামূল্যে পরীক্ষা-নিরীক্ষা হলেও বাইরের ফার্মেসি থেকে স্যালাইন ও ইনজেকশন কিনে আনতে হয়েছে।

অন্যদিকে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টিতে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ ও পৌরসভাসহ সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ের প্রতিষ্ঠান লিপলেট বিতরণ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন স্থানে সভা-সমাবেশ, শহরে র্যালি, আলোচনাসভাসহ সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

feni-Dangu-1

সোমবার থেকে ফেনী পৌরসভার ১৮টি ওয়ার্ডে মশা নিধনের কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মেয়র হাজী আলা উদ্দিন।

ডেঙ্গু আক্রান্ত এক রোগীর স্বজন সাইদুল ইসলাম সনেট জানান, সরকার ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন। হাসপাতালগুলোতে বিনামূল্যে চিকিৎসা শুরু হয়েছে। বেসরকারি হাসপাতালগুলোতেও বড় অঙ্কের ছাড় ঘোষণা করা হয়েছে। চিকিৎসার সহজ লভ্যতা ও সচেতনতা সৃষ্টি হওয়া মানুষের মধ্যে ডেঙ্গু আতঙ্ক কমে গেছে।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আবু তাহের পাটোয়ারী ওষুধ সংকটের কথা স্বীকার বলে বলেন, ডেঙ্গু আক্রান্তদের সকল পরীক্ষা-নিরীক্ষা বিনামূল্যে করা হচ্ছে। সরবরাহ না থাকায় স্যালাইন ও ইনজেকশন দেয়া যাচ্ছে না। তবে হাসপাতালের পক্ষ থেকে ভর্তিকৃত সকল রোগীদের মশারি দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) ফেনী জেলার সভাপতি ডা. সাহেদুল ইসলাম কাওসার জানান, ডেঙ্গু প্রতিরোধে ফেনীতে বেসরকারি হাসপাতাল মালিক সমিতির এক জরুরি সভায় আক্রান্ত রোগীদের পরীক্ষায় সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা ও হাসপাতালে ভর্তিকৃত রোগীদের বিলের ওপর ৫০ শতাংশ ছাড় ঘোষণা করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ফেনীর সিভিল সার্জন ডা. নেয়াতুজ্জামান বলেন, সরকার ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছে। বেসরকারি হাসপাতালে পরীক্ষা-নিরীক্ষা সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা ও ভর্তিকৃত রোগীদের ৫০ শতাংশ ছাড় দেয়া হবে। কোনো রোগী এ সেবা থেকে বঞ্চিত হলে সরাসরি তাকে জানানোর অনুরোধ জানান সিভিল সার্জন।

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট ফেনী জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক বিধান চন্দ্র সেন গুপ্ত বলেন, সরকারি নির্দেশনাটি সোমবার সকালে হাতে পেয়েছি। মঙ্গলবার থেকে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীরা সব ধরণের ওষুধপত্র বিনামূল্যে পাবেন বলে আশ্বস্ত করেন তিনি।

রাশেদুল হাসান/আরএআর/পিআর

টাইমলাইন